• মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৪ রাত

দার্জিলিংয়ের সঙ্গে বাংলাদেশের রেল যোগাযোগ চালুর উদ্যোগ

  • প্রকাশিত ০৮:৫৯ রাত সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৮
দার্জিলিংয়ের সঙ্গে বাংলাদেশের রেল যোগাযোগ চালুর উদ্যোগ
বাংলাদেশ এবং ভারতের শিলিগুড়ি ও দার্জিলিংয়ের মধ্যে রেল যোগাযোগ পুনরায় চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে দুই দেশের সরকার। ছবি: বাসস

ব্রিটিশ শাসনামলে নির্মিত ওই রেলপথ পুনরায় চালুর জন্য ভারত সরকার নিজেদের ভূখন্ডে তিন কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ করবে। বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগ পর্যন্ত রেলপথটি দিয়ে শিলিগুড়ি হয়ে দার্জিলিং পর্যন্ত যাত্রী ও পণ্য পরিবহন করা হতো।

পাঁচ দশকেরও বেশি সময় পর আবারও বাংলাদেশ এবং ভারতের শিলিগুড়ি ও দার্জিলিংয়ের মধ্যে রেল যোগাযোগ পুনরায় চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে দুই দেশের সরকার। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশের নীলফামারি জেলার সীমান্তবর্তী চিলাহাটি থেকে ভারতীয় অংশে হলদিবাড়ি পর্যন্ত সাত কিলোমিটার রেললাইন পুননির্মান করা হবে। এ বিষয়ে ভারতীয় অর্থায়নে নতুন একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের একজন অতিরিক্ত মহাপরিচালক এ বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত করেছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এই রেলপথ র্নিমাণ কাজ সম্পন্ন হলে শুধু ভারতের সঙ্গে যে দ্বিপাক্ষিক বানিজ্য বৃদ্ধি হবে, তা নয়। পাশাপাশি পর্যটনসহ নেপাল ও ভুটানের সঙ্গেও বানিজ্য বাড়বে। তিনি আরও বলেন, একনেক-এর অনুমোদন পেলে ২০২১ সাল নাগাদ এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

এদিকে, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ব্রিটিশ শাসনামলে নির্মিত ওই রেলপথ পুনরায় চালুর জন্য ভারত সরকার নিজেদের ভূখন্ডে তিন কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ করবে। বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগ পর্যন্ত রেলপথটি দিয়ে শিলিগুড়ি হয়ে দার্জিলিং পর্যন্ত যাত্রী ও পণ্য পরিবহন করা হতো। ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ওই পথে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

এ ছাড়াও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ইতিমধ্যে বিবিআইএন (বাংলাদেশ ভুটান, ভারত ও নেপাল) অঞ্চলে যান চলাচল চুক্তি হয়েছে। উদ্যোগটি কার্যকর করা হলে তা বাংলাদেশের মংলা সমুদ্র বন্দর দিয়ে আমদানি- রফতানি বাড়াতে ভূমিকা রাখবে।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ২৫-২৭ মে ভারতের নয়াদিল্লিতে আন্তঃসরকার রেলপথ বৈঠকেও (আইজিআরএম)-এ বাংলাদেশ ও ভারত- উভয় দেশের সরকার চিলাহাটি- হলদিবাড়ি রেলপথ পুনরায় চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।