• সোমবার, আগস্ট ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৫৩ বিকেল

রাষ্ট্রদূত: বাংলাদেশে অবাধ গণতন্ত্রের চর্চা দেখতে চায় জার্মানি

  • প্রকাশিত ১২:০১ দুপুর নভেম্বর ১৪, ২০১৮
পিটার ফারেন হোল্টজ
বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেন হোল্টজ। ছবি: ইউএনবি

জার্মানি কখনো সহিংস কোনো পথকে গণতন্ত্রের চর্চা মনে করে না বলে মন্তব্য করেন তিনি

বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেন হোল্টজ বলেছেন, ‘জার্মানি বাংলাদেশে অবাধ গণতন্ত্রের চর্চা দেখতে চায়। সেজন্য একটি অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন জরুরী। আগামী নির্বাচনে সব দল অংশ নেবে বলে আশা করছি। কোনো রাজনৈতিক দলই নির্বাচনের বাইরে থাকবে না।’

তবে জার্মানি কখনো সহিংস কোনো পথকে গণতন্ত্রের চর্চা মনে করে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রদূত ইউএনবি'কে বলেন, ‘গত ১০ বছরে বাংলাদেশের অর্জন ব্যাপক। অর্থনৈতিক উন্নয়নে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। অচিরেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।’

বাংলাদেশের উন্নয়ন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘জার্মানি বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগী। আমরা বাংলাদেশকে জলবায়ু পরিবর্তন, ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট, সুশাসনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহায়তা করছি। জার্মানি সব সময় বাংলাদেশের জনগণের সাথে আছে।’

জার্মান বাষ্ট্রদূত আরও বলেন, ‘আমি বাংলাদেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য চর্চা করেছি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধা রয়েছে। বাঙ্গালি জাতির মহানায়কের স্মৃতিসৌধে এসে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে নিজেকে ধন্য মনে করছি।’

এর আগে রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেন হোল্টজ টুঙ্গিপাড়া পৌঁছে জাতির পিতার সমাধিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে তিনি বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ প্রার্থনা করেন। সন্ধ্যার পর জার্মান রাষ্ট্রদূত বঙ্গবন্ধু ভবনে যান এবং পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করেন।