• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থীর বাই-সাইকেলে 'আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ' পালন

  • প্রকাশিত ০৬:০৬ সন্ধ্যা নভেম্বর ৩০, ২০১৮
র‌্যালি
বগুড়ার ৩৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঁচ শতাধিক নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে র‌্যালিটি হয়। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে পুলিশ লাইন্স মাঠে গিয়ে শেষ হয়

বগুড়ায় পাঁচ শতাধিক নারী শিক্ষার্থী ৫ কিলোমিটার বাই-সাইকেল চালিয়ে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ পালন করেছে। ‘নারীর কথা শুনবে বিশ্ব : কমলা রঙে নতুন দৃশ্য’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে পুলিশ প্রশাসন আয়োজিত এ র‌্যালিতে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের ছাত্রীরা অংশ নেয়। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে শহরের ফুলবাড়ি এলাকায় সরকারি আজিজুল হক কলেজ পুরাতন ভবন মাঠ থেকে জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদের নেতৃত্বে র‌্যালি বের হয়। শত শত জনতা কলেজ থেকে পুলিশ লাইন্স মাঠ পর্যন্ত সড়কের দু’পাশে দাঁড়িয়ে সাইক্লিষ্টদের অভিনন্দন জানান। আস্থা প্রকল্প নামে একটি বেসরকারি সংস্থা র‌্যালির আয়োজনে সহযোগিতা করে।

এর আগে পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঁঞার সভাপতিত্বে ও পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহাদত আলম ঝুনুর সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অন্যান্যের মধ্যে সরকারি আজিজুল হক কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শাহজাহান আলী, ইউএনএফপিএ’র কাউন্সিলিং অফিসার রুমানা পারভিন, আস্থা প্রকল্পের সমন্বয়ক মাসুদা ইসলাম, বগুড়া সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি তৌফিক হাসান ময়না, বেসরকারি সংস্থা আলোকিত বাংলাদেশের ফেরদৌসী আকতার রুনা, কবি সিক্তা কাজল, পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্রী খায়রুন নাহার খুশি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে পুলিশ লাইন্স মাঠে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় শত শত জনতা সড়কের দু’পাশে দাঁড়িয়ে র‌্যালিতে অংশগ্রহণকারী ৫১১ নারী শিক্ষার্থী ও অন্যান্য অংশগ্রহণকারীদের অভিনন্দন জানান। পুলিশ লাইন্স মাঠে অংশগ্রহণকারীদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। এরপর মিলনায়তনে নারী নির্যাতন বিষয়ে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বির্তক প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। বিপক্ষ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জয়লাভ করেন।

বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঁঞা ও অন্যরা দাবি করেছেন, বগুড়ার ৩৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঁচ শতাধিক নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে র‌্যালিটি ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। কেননা এর আগে বিশ্বের কোথায় নারী নির্যাতন বিষয়ে এত সংখ্যক নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে র‌্যালি হয়নি। তিনি ঘোষণা দিয়ে বলেন, "আজ থেকে বগুড়ায় আর কোন ইভটিজিং এবং বাল্য বিয়ে হবেনা। সে জন্য বগুড়ার পুলিশ প্রতিজ্ঞাবদ্ধ"।