• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

রেলের ক্ষতিপূরণ না পাওয়ায় স্ট্রোকে নারীর মৃত্যু

  • প্রকাশিত ০৮:১৩ রাত ডিসেম্বর ৫, ২০১৮
কক্সবাজার

জমি নিয়ে বিরোধ থাকায় ক্ষতিপূরণের অর্থ পাচ্ছিলেন না খালেদা

কক্সবাজারেজমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণের টাকা দেওয়ার আগেই রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এইসব জমিতে বসবাসরত মানুষদের বসতবাড়ি উচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু করায় দুশ্চিন্তায় স্ট্রোক করে খালেদা বেগম নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের সাত ঘরিয়া পাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে বলে বাংলা নিউজের একটি খবরে জানানো হয়েছে। 

জানা গেছে, মৃত খালেদা বেগমের স্বামী তাকে ও তার সন্তানদের রেখে পালিয়ে যাওয়ার কারণে ছোট ছোট ৪ ছেলে ও ২ মেয়ে নিয়ে দারুণ বিপাকে পড়েন খালেদা। এরপর পৈতৃকসূত্রে পাওয়া জমিতে একটি ছনের ঘর নির্মান করে সেখানে বসবাস শুরু করেন খালেদা ও তার সন্তানরা।

সম্প্রতি ওই জমিটি রেললাইনের জন্য অধিগ্রহণ করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এই অধিগ্রহণের কারণে প্রাপ্য ক্ষতিপূরণের টাকার জন্য খালেদা জেলা প্রশাসনে যোগাযোগ করেন। তবে, ঐ জমি নিয়ে বিরোধ থাকায় ক্ষতিপূরণের অর্থ পাচ্ছিলেন না খালেদা।

এরই মধ্যে রেললাইনের কাজ শুরু করার জন্য তাকে ভিটেটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বারবার তাগিদ দেওয়া হয়। ফলে ভীষণ বেকায়দায় পড়ে যান খালেদা। এরপর গত ২২ নভেম্বর রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের লোকজন তার বসত ভিটার সুপারি গাছ কাটা শুরু করলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। এরই এক পর্যায়ে ব্রেন স্ট্রোকে হয়ে মৃত্যুবরণ করেন খালেদা।

এদিকে, খালেদার মৃত্যুর সংবাদ এবং কারণ জানতে পেরে রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. লুৎফুর রহমান, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম ও রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ছানা উল্লাহ তার বাড়িতে যান। এসময় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খালেদা বেগমের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা নগদ অর্থ সহায়তা দেন ইউএনও।