• শনিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩২ রাত

নীলফামারীতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী না থাকায় সমর্থকের আত্মহত্যা

  • প্রকাশিত ০৯:৫৫ রাত ডিসেম্বর ৫, ২০১৮
নীলফামারী
ঘুনুরাম রায়ের আকস্মিক মৃত্যুতে স্বজনদের আহাজারি। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন।

আসন্ন নির্বাচনে নীলফামারী-৩ আসনে কোন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী না থাকায় কয়েকদিন ধরেই অস্বাভাবিক আচরণ করছিলেন তিনি

নীলফামারী-৩ আসনে নৌকার প্রার্থী না থাকায় আত্মহত্যা করেছেন ঘুনুরাম রায় (৫০) নামের এক আওয়ামী লীগ সমর্থক। বুধবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে পরিবারের সদস্যদের অনুপস্থিতিতে নিজ ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

উপজেলার ৫ নং ধর্মপাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান আলী ঢাকা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ঘুনুরাম ধর্মপাল ইউনিয়নের পাইটকাপাড়া গ্রামের মৃত প্রহল্লাদ চন্দ্র রায়ের ছেলে। তিনি নৌকা প্রতীকের এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফার অন্ধ সমর্থক বলে মৃতের পরিবারসূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা ও আওয়ামী লীগের একজন অন্ধভক্ত ছিলেন। তিনি পেশায় একজন দিনমজুর হলেও আওয়ামী লীগের সকল কার্যক্রমে তার সরব উপস্থিতি ছিল।

পাইটকা পাড়া ৯ নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সভাপতি লুৎফর রহমান জানান, “এবারের নির্বাচনে এই আসন থেকে নৌকা মার্কার প্রার্থীকে মনোনয়ন না দেওয়ায় কয়েকদিন ধরেই তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন। তার এই মানসিক বিমর্ষতার কারণেই তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে মনে হয়”।

এদিকে মৃতের পরিবার ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে আওয়ামী লীগ এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক গোলাম মোস্তফার একজন একনিষ্ঠ সমর্থক ঘুনুরাম আসন্ন নির্বাচনে নীলফামারী-৩ আসনে কোন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী না থাকায় কয়েকদিন ধরেই অস্বাভাবিক আচরণ করছিলেন।

ঐ এলাকার কৃষক মশিউর রহমান বলেন, “আজকে সকালেও এলাকার একটি দোকানের সামনে বলতে শুনেছি, ‘নৌকা নাই ভোট দেব কাকে? আমার এমপি যদি মনোনয়ন না পায় তাহলে, আমার মরা ছাড়া আর উপায় নাই’।এরপর দুপুরে তার আত্মহত্যার কথা জানতে পারি।”

উল্লেখ্য, এই আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা। এবারের নির্বাচনে ওই আসনে মহাজোটের কারণে আওয়ামী লীগের কোন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। সেখানে জাতীয় পাটির প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য কাজী ফারুক কাদের ও মেজর (অব.) রাণা মোহাম্মদ সোহেলকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে, ২০ দলীয় জোটের পক্ষে ধানের শীষ মার্কা নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় সুরা সদস্য আজিজুল ইসলাম।