• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:০০ রাত

গোপালগঞ্জে বাস-মাহেন্দ্র সংঘর্ষে নিহত ১১

  • প্রকাশিত ০৮:৪৭ রাত ডিসেম্বর ২০, ২০১৮
ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন
ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

নিহতদের মধ্যে দুই শিশু, তিন নারী রয়েছে।  

গোপালগঞ্জ  সদর উপজেলায় বাস ও মাহেন্দ্রর মধ্যে সংঘর্ষে একই পরিবারের চারজনসহ কমপক্ষে ১১ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন। 

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের উপজেলার হরিদাসপুর নামক স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. মোখলেসুর রহমান সরকার ও পুলিশ সুপার (এসপি) মো. সাইদুর রহমান খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহতের মধ্যে  গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার সুলতানশাহী গ্রামের আল আমীন শেখের মেয়ে মরিয়ম (৮), ছেলে নয়ন শেখ (১১), শাশুড়ি  রেনু বেগম (৪৫) শ্যালিকা মেঘলা (৯), মাহেন্দ্রচালক একই উপজেলার সুকতাইল গ্রামের রাজিব মোল্লা (২০), হরিদাসপুর গ্রামের আক্কাস মোল্লার ছেলে সাদ্দাম মোল্লা (২৫) একই উপজেলার  ডুমদিয়া গ্রামের  ঝিলু গাজীর মোর্শেদ গাজী (৪০), তেবাড়িয়া গ্রামের কাশেম শেখের ছেলে জানে আলম শেখ (৩৭), চন্দ্রদিঘলিয়া গ্রামের ছলেমান সিকদারের ছেলে জগলু সিকদার (৩৫) নাম জানা গেছে। অন্য দুইজনের পরিচয় জানা যায়নি।

পুলিশ, গোপালগঞ্জ ও ফরিদপুরের ফায়ার সার্ভিস কর্মী এবং স্থানীয়রা হতাহতদের উদ্ধার গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করেছেন।

গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া গোপালগঞ্জগামী গোল্ডেন লাইনের একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মাহেন্দ্রের (থ্রি-হুইলারের)  সংঘর্ষে   মাহেন্দ্রটি  বাসের নিচে চলে যায়। দুমড়ে মুচড়ে বাসটি রাস্তার পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশু ও নারীসহ ১১ জন নিহত হয়। 

গোপালগঞ্জে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপতালের উপপরিচালক চৌধুরী ফরিদুল ইসলাম ১১ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে বলেছেন, হাসপাতালে ১০ জনের লাশ রয়েছে। একজনের লাশ স্বজনরা নিয়ে গেছে।