• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:১৫ সন্ধ্যা

নলকূপ নিয়ে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের হাতাহাতি

  • প্রকাশিত ০৩:২৭ বিকেল জানুয়ারী ১৭, ২০১৯
মানচিত্রে গোপালগঞ্জ
মানচিত্রে গোপালগঞ্জ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

বাক-বিতণ্ডা থেকে এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও কয়েকজন সদস্য

সরকারি নলকূপ বিতরণকে কেন্দ্র করে বাক-বিতণ্ডা থেকে এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েছেন গোপালগঞ্জের একটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও কয়েকজন সদস্য। বৃহস্পতিবার (১৭ জানুয়ারি) জেলার কাশিয়ানী উপজেলার রাজপাট ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

খবর পেয়ে কাশিয়ানী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজপাট ইউনিয়নে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের জন্য জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তর কর্তৃক ২৪ টি ডিপ টিউবওয়েল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান এম ডি মনিরুল আলম সেগুলো তার পছন্দের দু’জন সদস্যের মাঝে বণ্টন করেছেন। এ নিয়ে চেয়ারম্যানের সাথে অন্য ইউপি সদস্যদের দ্বন্দ তৈরি হয়। বুধবার সকালে ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মামুন মোল্যা ও ৭ নং ওয়ার্ডের সদস্য মহাসিন সিকদারসহ কয়েকজন সদস্য বিষয়টি চেয়ারম্যানের কাছে শুনতে ইউনিয়ন পরিষদে গেলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়। 

ইউপি চেয়ারম্যান এমডি মনিরুল আলম মুঠোফোনে ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘‘আমার পরিষদের দুই সদস্য পরিষদের কক্ষে ঢুকে অতর্কিতভাবে আমাকে মারধর করে পালিয়ে যায়।’’

তবে ইউপি সদস্য মহাসিন সিকদার পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, ‘‘১০ জন ইউপি সদস্যকে গভীর নলকূপ বরাদ্দ না দিয়ে চেয়ারম্যান সেগুলোর অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। আমরা কয়েকজন মিলে বিষয়টি শুনতে পরিষদে গেলে চেয়ারম্যান আমাকে মারধর করেন।’’ 

কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএসএম মাঈন উদ্দিন বলেন, ‘‘মোবাইলে বিষয়টি জানতে পেরেছি ঘটনাটি দুই ইউপি সদস্য ঘটিয়েছে। তবে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’