• শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫২ রাত

আগাম জামিন পেলেন মানবজমিনের সাংবাদিক

  • প্রকাশিত ০৫:০৫ সন্ধ্যা জানুয়ারী ২১, ২০১৯
মো. রাশিদুল ইসলাম
মানবজমিনের খুলনার স্টাফ রিপোর্টার ও খুলনা প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি মো. রাশিদুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত।

তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছিল

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় হাইকোর্টে আগাম জামিন পেয়েছেন মানবজমিনের খুলনার স্টাফ রিপোর্টার ও খুলনা প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি মো. রাশিদুল ইসলামকে ৪ সপ্তাহের আগাম জামিন দেয়া হয়েছে।

সোমবার (১৯ জানুয়ারি) বিচারপতি মুহাম্মদ আবদুল হাফিজ ও বিচারপতি মহীউদ্দিন শামীমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ শুনানি শেষে তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।  

মো. রাশিদুল ইসলামের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী এম মাসুদ রানা। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হিসেবে শুনানিতে অংশ নেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল রাফি আহমেদ।

উল্লেখ্য, গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন খুলনার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. হেলাল হোসেন বেসরকারি ফলাফল প্রকাশের সময় খুলনা-১ আসনের (দাকোপ-বটিয়াঘাটা)নৌকা প্রতীকের প্রার্থী পঞ্চানন বিশ্বাস ২, ৫৩, ৬৬৯ ভোট এবং ধানের শীষের প্রার্থী আমীর এজাজ খান ২৮, ১৭৭ ভোট পেয়েছেন বলে ঘোষণা দেন যা ঐ আসনের মোট ভোটারের চেয়ে ২২, ৪১৯ ভোট বেশী ছিল।

পরে রাতেই ফলাফল সংশোধন করে ঘোষণা দেওয়া হয় নৌকা প্রতীক পেয়েছে ১ লাখ ৭২ হাজার ১৫২ ভোট এবং ধানের শীষ পেয়েছে ২৮ হাজার ৩২২ ভোট।

তবে, সংশোধিত এবং চুড়ান্ত ফলাফল পাওয়ার আগেই সংবাদমাধ্যমে মোট ভোটারের চেয়েও বেশি ভোট পাওয়ার খবরটি প্রকাশ করায় বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাশীষ চৌধুরী বাদী হয়ে ঢাকা ট্রিবিউন ও বাংলা ট্রিবিউনের খুলনা প্রতিনিধি মোঃ হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা ও মানবজমিনের খুলনার স্টাফ রিপোর্টার মো. রাশিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন। দায়ের করা মামলার প্রেক্ষিতে গ্রেফতার হন হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা। 

পরবর্তীতে হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা খুলনার আদালত থেকে জামিন পেয়ে কারা মুক্ত হন। একই মামলায় সোমবার আগাম জামিন পেলেন সাংবাদিক মো. রাশিদুল ইসলাম।