• রবিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০০ রাত

আগাম জামিন পেলেন সেই প্রতিবন্ধী তারা মিয়া

  • প্রকাশিত ১০:৩৭ রাত জানুয়ারী ২৩, ২০১৯
তারা মিয়া
পুলিশের ওপর হামলার মামলায় জামিন পেয়েছেন শারীরিক প্রতিবন্ধী তারা মিয়া। ছবি: ইউএনবি

তারা মিয়াসহ ৫০ জনকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট

বাঁশ, লাঠি ও রডসহ অন্যদের সাথে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় হাইকোর্ট থেকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন পেয়েছেন সুনামগঞ্জের প্রতিবন্ধী (ডান হাত অকেজো) ভিক্ষুক তারা মিয়া।

একই সঙ্গে একই মামলার আরও ৪৯ জনকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) স্বশরীরে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন জানালে বিচারপতি মো. রইছ উদ্দিন ও বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এ জামিন আদেশ দেন।

আদালতে জামিন আবেদনের ওপর শুনানি করেন ব্যারিস্টার মো. আবিদুল হক। তার সাথে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. সাইফুল ইসলাম।

পরে আবিদুল হক বলেন, তারা মিয়াসহ ৫০ জনকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ সময়ের মধ্যে তাদেরকে সুনামগঞ্জের আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি আদালতের শুনানিতে বলেছি, দেশে যেভাবে গায়েবি ও বেআইনী মামলা হচ্ছে তারা মিয়া তার একটা উদাহরণ। সে নিজেই চলতে পারে না। একজন ভিক্ষুক, তাকে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে আসামি করা হয়েছে। আদালত শুনানি নিয়ে তার জামিন মঞ্জুর করে।

এর আগে পুলিশের ওপর হামলা মামলার আসামি তারা মিয়া জামিন নিতে মঙ্গলবার হাইকোর্টে আসেন।

বুধবার একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবন্ধী তারা মিয়ার ছবি দিয়ে ফলাও করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরে জামিন আবেদনের পাশাপাশি তারা মিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার আবিদুল হক দৈনিকে প্রকাশিত ছবিটিও আদালতের নজরে আনেন। আদালত সার্বিক বিষয় বিবেচনায় ৬ সপ্তাহের জামিন মঞ্জুর করে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর ষড়যন্ত্র ও হত্যার উদ্দেশ্যে পুলিশের ওপর আঘাত করার অভিযোগ এনে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাটি করেন সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ থানার এস আই মো. তারিকুল ইসলাম।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরেছেন জামালগঞ্জ থানার ভীমখালী ইউনিয়নের মল্লিকপুর বাজারের পঞ্চগ্রাম মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে আসামিরা নাশকতা সৃষ্টির পরিকল্পনা করছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে হাজির হলে এজাহারে উল্লেখিত তারা মিয়াসহ ৫২ জন এবং অজ্ঞাতনামাসহ ৬০ থেকে ৭০ জন রামদা, হকিস্টিক, বাঁশ, রডসহ দেশীয় অস্ত্র সহ পুলিশের ওপর হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে।