• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৫৫ সকাল

'দার্জিলিং-ঢাকা সরাসরি ট্রেন সার্ভিস চালু হবে'

  • প্রকাশিত ০৬:২৫ সন্ধ্যা জানুয়ারী ২৬, ২০১৯
রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন
শনিবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে নীলফামারী রেলস্টেশন পরিদর্শন শেষে স্টেশন চত্ত্বরে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন।

'রেলের উন্নয়নে বরাদ্দ করা হয়েছে ৩৯ হাজার কোটি টাকা'

অচিরেই চিলাহাটি থেকে ভারতের হলদিবাড়ি রেলপথ দিয়ে দার্জিলিং-ঢাকা রেল সংযোগের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। শনিবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে নীলফামারী রেলস্টেশন পরিদর্শন শেষে স্টেশন চত্ত্বরে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে রেলমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, "আগামী এক বছরের মধ্যে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেল পথ দিয়ে দার্জিলিং-ঢাকা সরাসরি ট্রেন সার্ভিস চালু হবে।"

রেলমন্ত্রী বলেন, "বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার বিগত সময় ক্ষমতায় থেকে রেলকে ধ্বংস করেছে। ১৯৯১ সালে ১০ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারীকে তারা বিদায় করে দিয়েছিল। অন্যদিকে, লীগ জনগণের সেবক। ক্ষমতায় এসে আলাদা মন্ত্রনালয় গঠন করে রেলের উন্নয়নে নতুন নতুন কাজ হাতে নিয়েছে। বরাদ্দ করেছে ৩৯ হাজার কোটি টাকা"।

নুরুল ইসলাম সুজন আরও বলেন, "ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত সরাসরি দ্রুতগতির ট্রেন চলাচল প্রকল্পের কাজও শুরু হয়েছে। প্রত্যেক জেলার সঙ্গে রেলের সংযোগ হবে। যমুনা নদীতে বঙ্গবন্ধু সেতুর পাশেই আলাদা একটি রেল সেতু নির্মাণ করা হবে। নতুন ইঞ্জিন আনা হয়েছে, মিটার গেজে ২০০টি এবং ব্রডগেজে ৫০টি কোচ অচিরেই রেল বহরে যুক্ত হবে"।

এছাড়াও মন্ত্রী রেলের টিকিটের কালোবাজারী ঠেকানোর ব্যাপারে কথা বলেন। তিনি বলেন, "আমরা সাধারণ টিকিট অনলাইনে দেওয়ার চিন্তা করছি না। কারণ সাধারণ মানুষের মধ্যে অনেকেই এখনো অনলাইনের ব্যবহার জানেন না। আর টিকিট কেনার জন্য জাতীয় পরিচয় পত্রের ব্যবহার চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে আপনাদের (জনগন) কোন পরামর্শ থাকলে সেটিকেও গুরুত্ব দেওয়া হবে"।

মন্ত্রী সুজন বলেন, "লোকবল নিয়োগ দিয়ে রেলকে সচল এবং সাধারণ মানুষের বাহনে পরিণত করা হবে। দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেল কারাখায় লোকবল নিয়োগ দিয়ে সেটির পুরোনো ঐতিহ্যকে ফিরে আনা হবে।"

এসময় পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, পশ্চিমাঞ্চল রেলের বিভাগীয় প্রকৌশলী (সেতু) মো. মনিরুজ্জামান ও আরিফুল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুজার রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।