• মঙ্গলবার, মে ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

আবারও লাউয়াছড়া উদ্যানের গাছ চুরি

  • প্রকাশিত ০৫:৪৪ সন্ধ্যা জানুয়ারী ২৯, ২০১৯
লাউয়াছড়া
চোরদের কেটে রাখা গাছ উদ্ধার করে বনবিভাগ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

এই চুরির ঘটনায় বনবিভাগের লোকজন জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা

আবারও চুরি হচ্ছে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের গাছ। গত এক সপ্তাহে ভানুগাছ-শমশেরনগর সড়কের উদ্যানের মাগুরছড়ার একটি টিলা থেকে ১১টি সেগুন গাছ কেটে নিয়েছে চোরেরা। ইতোমধ্যে কেটে ফেলা দুটি গাছের খণ্ডাংশ ও ৩০ বান্ডিল গল্লাবেত উদ্ধার করা হয়েছে। 

তবে এই চুরির ঘটনায় বনবিভাগের লোকজন জড়িত বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিনে দেখা যায়, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের মাগুরছড়া এলাকার মুজিব উঠনি নামক টিলার বাগান থেকে গত এক সপ্তাহে কয়েক দফায় চোরেরদল মেহগনি, চিকরাশি সহ কয়েকটি প্রজাতির ১১টি গাছ কেটে নেয়। গত রবিবার (২৭ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে একই টিলা থেকে আরও দুটি গাছ কেটে ফেলে চোরচক্র। পাশাপাশি একই স্থানের ঝোপঝাড় থেকে প্রায় হাজারখানেক গল্লাবেত কেটে আঁটি বেঁধে রাখে চোরচক্র। ধারণা করা হচ্ছে, পাচারের জন্য বেতগুলো সেখানে রাখা হয়েছে।

খবর পেয়ে বন বিভাগের লোকজন পরদিন (২৮ জানুয়ারি) সকালে কেটে রাখা দুইটি গাছের খণ্ডাংশ ও ৩০ বান্ডিল গল্লাবেত উদ্ধার করে বনবিট অফিসে নিয়ে আসে।

লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা উদ্ধারকৃত গল্লাবেত ও কেটে ফেলা গাছের মূল্য নির্ধারণ করতে না পারলেও ধারণা করা হচ্ছে, ৩০ বান্ডিল গল্লাবেত ও ১১টি গাছের বাজার মূল্য সাড়ে তিন লাখ টাকারও বেশি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন, লাউয়াছড়া বনবিটের পাহারাদার ও বিট অফিসারের যোগসাজশে আবারও গাছ চুরির ঘটনা ঘটছে। এর আগে বেশ কিছুদিন ধরে থাকলেও আবার গাছ চুরি শুরু করেছে সংঘবদ্ধ পাচারকারীরা।

তবে চুরির ঘটনায় বনবিভাগের কারও সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করে লাউয়াছড়া বনবিট কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, গাছ ও বেত কাটার খবর পাওয়ার সাথে সাথেই অভিযান চালিয়ে সেগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। এগুলো নিলামে বিক্রি করা হবে। 

তিনি আরও জানান, জনবল স্বল্পতার কারণে সবসময় বনের সব জায়গায় পাহারা দেওয়া সম্ভব হয়না। তবে ওই জায়গা ছাড়া অন্য কোথাও গাছ চুরি হচ্ছে না এবং সেগুনসহ মূল্যবান প্রজাতির গাছ গাছালি রক্ষায় সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে। উদ্ধারকৃত গল্লাবেত ও গাছের বাজারমূল্য এখনও নির্ধারণ করা হয়নি।