• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলার রায় আগামীকাল

  • প্রকাশিত ০৬:১৫ সন্ধ্যা জানুয়ারী ২৯, ২০১৯
আদালত

এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো রায়ের তারিখ ধার্য করা হলো

রাজধানীর ইস্কাটনে জোড়া খুনের মামলায় সাবেক সংসদ সদস্য পিনু খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনির বিরুদ্ধে আদালতে রায় আগামীকাল বুধবার (৩০ জানুয়ারি) ঘোষণা করা হবে। ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. মঞ্জুরুল ইমাম এ রায় ঘোষণা করবেন বলে জানান আদালতের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর মোহাম্মদ মাকসুদুর রহমান। 

এর আগে গত ১৫ জানুয়ারি মামলার আসামি রনির পক্ষে অধিকতর যুক্তিতর্ক উপস্থাপন ও শুনানি শেষে বিচারক রায়ের জন্য ৩০ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন। এর আগেও গত ১৯ সেপ্টেম্বর মামলাটির যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে আদালত রায়ের জন্য এই দিন ধার্য করেছিলেন। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো রায়ের তারিখ ধার্য করা হলো। 

গত ৮ মে মামলাটি ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে রায় ঘোষণার দিন ধার্য ছিল। কিন্তু ওই দিন বিচারক স্বপ্রণোদিত হয়ে রায় ঘোষণার তারিখ বাতিল করে অধিকতর যুক্তি উপস্থাপনের দিন ধার্য করেন। পরে আসামি পক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলাটি দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদলি করা হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৫ সালের ১৩ এপ্রিল রাত পৌনে দুটার দিকে রাজধানীর নিউ ইস্কাটনে একটি কালো রঙের প্রাডো গাড়ি থেকে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়লে অটোরিকশাচালক ইয়াকুব আলী ও রিকশাচালক আবদুল হাকিম আহত হন। পরে ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান।

এ ঘটনায় ওই বছরের ১৫ এপ্রিল নিহত হাকিমের মা মনোয়ারা বেগম অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে রমনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ওই বছরের ৩০ মে এলিফ্যান্ট রোডের বাসা থেকে ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে বখতিয়ার আলম রনিকে আটক করে ডিবি পুলিশ। এরপর থেকে তিনি কারাগারেই রয়েছেন।

আসামি রনির পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন ঢাকা বারের সাবেক সভাপতি কাজী নজিবুল্লাহ হিরু। তিনি মামলায় যুক্তি উপস্থাপন করে রনির বেকসুর খালাস দাবি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুস সাত্তার দুলাল যুক্তি উপস্থাপন শেষে আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দাবি করেন।

এ মামলায় ২০১৫ সালের ২১ জুলাই ডিবি পুলিশের এস আই দীপক কুমার দাস রনির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ২০১৬ সালের ৬ মার্চ রনির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ সামছুন নাহার।