• বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:৪৯ সন্ধ্যা

সিরাজগঞ্জে বাংলালিংক কর্মকর্তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

  • প্রকাশিত ০৮:৪৯ রাত ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৯
সিরাজগঞ্জ বাংলালিংক
শনিবার সিরাজগঞ্জের ভাড়া বাসা থেকে বাংলালিংক কর্মকর্তা ইসতিয়াকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

ঋণের দায়ে গত এক বছর থেকে ইসতিয়াক নেশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছিলেন

সিরাজগঞ্জে মোবাইল টেলিকম কোম্পানি বাংলালিংকের এক কাস্টমার কেয়ার কর্মকর্তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জেলা শহরের মাহমুদপুর মহল্লার ওপেল গার্ডেন আবাসিক এলাকার মইনুল ম্যানশনের ৪ তলা থেকে ইসতিয়াক আহম্মেদ পরাগ (৪০) নামে ওই বাংলালিংক কর্মকর্তার মরদেহ করে পুলিশ। 

গত এক বছর ধরে তিনি বাংলালিংকের সিরাজগঞ্জ ও পাবনা অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাস্টমার কেয়ার কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন বলে জানা গেছে। তার গ্রামের বাড়ি বগুড়া জেলার তেজপট্টি মহল্লায়। এদিন দুপুরে বাইরে থেকে ওপেল গার্ডেনের ভাড়া বাসায় এসে ঘরের দরজা বন্ধ করে তিনি গলায় ফাঁস নেন।

সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. রফিকুল ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, শনিবার দুপুরে ইসতিয়াকের আত্মহত্যার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে। আপাতত মরদেহ থানায় রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য রবিবার সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে। আপাতত এটি হ্যাংঙ্গিং সুইসাইডাল কেস বলে মনে হচ্ছে। নেপথ্যে কোনও ঘটনা থাকলে তা অনুসন্ধানে বের হবে। সদর থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। নিহতের স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। 

নিহতের স্ত্রী তাসলিমা চৌধুরী বীথি জানান, ছয় বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। ৫ বছরের একটি মেয়েও রয়েছে তাদের সংসারে। ঋণের দায়ে গত এক বছর থেকে ইসতিয়াক নেশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছিলেন। পাশাপাশি তীব্র মানসিক যন্ত্রণায়ও ভুগছিলেন। এসব নিয়ে প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়াও হতো। তবে তার আত্মহত্যার ঘটনাটি অপ্রত্যাশিত বলে উল্লেখ করেন বীথি।