• শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১২ রাত

নকল সরবরাহ করতে গিয়ে কারাগারে আওয়ামী লীগ নেতা

  • প্রকাশিত ০৭:৪১ রাত ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৯
গ্রেফতার
প্রতীকী ছবি।

বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষাকেন্দ্রে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে

বগুড়ার সোনাতলায় এসএসসি পরীক্ষায় নকল সরবরাহ ও সহযোগিতার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালত এক আওয়ামী লীগ নেতাকে সাতদিন এবং কলেজ ছাত্রকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষাকেন্দ্রে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে বলে সোনাতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিশ্চিত করেছেন।  

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন সোনাতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক খলিলুর রহমান এবং  বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র ফেরদৌস আলম। সাজাপ্রাপ্ত দু’জনকে বগুড়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আওয়ামী লীগ নেতা খলিলুর রহমানের ছেলে সোনাতলা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে। বৃহস্পতিবার সকালে পদার্থ বিজ্ঞান পরীক্ষা চলাকালে কলেজ ছাত্র ফেরদৌস আলম ওই খলিলুরের ছেলেকে নকল সরবরাহ করতে কেন্দ্রে ঢুকে পড়ে। এ সময় কর্তব্যরত পুলিশ তাকে নকলসহ গ্রেফতার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে ফেরদৌস পুলিশকে জানান, খলিলুর রহমান তার ছেলেকে নকল পৌঁছে দিতে তাকে পাঠিয়েছেন। পরে ফেরদৌসের দেওয়া তথ্যানুযায়ী কেন্দ্রের বাইরে থেকে খলিলুর রহমানকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পরবর্তীতে গ্রেফাতার ওই দু’জনকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর আলমের ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে বিচারক কলেজ ছাত্র ফেরদৌস আলমকে এক মাস ও আওয়ামী লীগ নেতা খলিলুর রহমানকে সাতদিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শফিকুর আলম এ বিষয়ে বলেন, "কেন্দ্রে নকল সরবরাহ করায় একজনকে এক মাস ও তাকে সহযোগিতা করায় অপরজনকে সাতদিনের কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে"।

সোনাতলার তেকানী চুকাইনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শামসুল হক দাবি করেন, "তার ছেলেকে নকল সরবরাহ নয়, বরং গ্রেফতার কলেজ ছাত্রকে ছাড়তে তদবির করায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে"।