• বুধবার, জুলাই ২৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪৪ রাত

মাদারীপুরে বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নিহত ৭, আহত অর্ধশতাধিক

  • প্রকাশিত ০১:০৪ দুপুর মার্চ ২৮, ২০১৯
মাদারীপুর
বৃহস্পতিবার সাড়ে ১১ টার মাদারীপুর সদর উপজেলার মাহফিলের যাত্রীবাহী বাস খাদে পরে ৭ জন নিহত হয়েছে। ছবি: মনজুর হোসেন/ঢাকা ট্রিবিউন

এ ঘটনার পর ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে প্রায় দুই ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়

মাদারীপুর সদর উপজেলার ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের কলাবাড়ি এলাকায় বৃহস্পতিবার সাড়ে ১১ টার দিকে মাহফিলের যাত্রীবাহী বাস খাদে পরে ৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন প্রায় পয়তাল্লিশ জন যাত্রী।   

নিহতরা হলেন, হাবি হাওলাদার (৫০), আব্বাস খান (৩২), হাসিয়া বেগম (৫৫), হাসান (১৪), আক্কাস (৪০), নয়ন (২৭), সায়েম (২৫)। এদের সবার বাড়ি মাদারীপুর সদর উপজেলার ভাঙ্গাব্রিজ, পান্তাপাড়া, খৈয়রভাঙ্গা এলাকায়। 

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস এবং স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ফরিদপুরের চন্দ্রপাড়া মাহফিল অংশ নেয়ার জন্য মঙ্গলবার বাড়ি থেকে চন্দ্রপাড়া যায় মুসল্লিরা। সকালে মাহফিল শেষে চন্দ্রপাড়া থেকে মাদারীপুর সদরের ভাঙ্গাবীজ এলাকায় সুবিন-নবীন নামের একটি লোকালাবাসে করে বাড়ি ফিরছিলেন মুসল্লিরা। 

ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের সদর উপজেলার কলাবাড়ি এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাককে সাইট দিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে যায় বাসটি। এসময় ঘটনাস্থলে ৪ জন নিহত হয়। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পরে মারা যায় আরো ৩ জন। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে প্রায় পয়তাল্লিশ জন যাত্রী। 

খবর পেয়ে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনার পর ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে প্রায় দুই ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালাদার জানান, “খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। দুর্ঘটনায় ৭জন নিহত হলেও এর সংখ্যা বাড়তে পারে।” 

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক অখিল সরকার বলেন, “দুর্ঘটনায় এই পর্যন্ত ৭জন নিহত হয়েছেন। আহত আছেন প্রায় পয়তাল্লিশ জনের মত। নিহতের সংখ্যার বাড়তে পারে। আমরা আহতদের যথাসাধ্য চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি। গুরুতর বেশ কয়েকজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।”