• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

খাগড়াছড়িতে পূর্বশত্রুতার জেরে ইউপি সদস্যকে হত্যা

  • প্রকাশিত ০৩:৪১ বিকেল মার্চ ২৯, ২০১৯
খাগড়াছড়ি

প্রায় দুই বছর পর স্বজন ও সমর্থকদের নিয়ে নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন তিনি।

খাগড়াছড়ি সদরের নুনছড়ি এলাকায় পূর্বশত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হয়েছেন কালো বন্ধু ত্রিপুরা নামে এক ইউপি সদস্য। 

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে পরিবারের সদস্য ও সমর্থকদের নিয়ে মাইসছড়ি থেকে নুনছড়ির বাড়িতে ফেরার পথে থলিপাড়া এলাকায় প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের ওপর হামলায় চালায়। এতে ঘটনাস্থলে কালো বন্ধু ত্রিপুরা নিহত ও ৭ জন আহত হয়। আহতরা খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। 

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা উদয়ন ত্রিপুরা ও রূপা বালা ত্রিপুরা জানান, মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি বাজার থেকে চাঁদের গাড়িতে করে পরিবারের সদস্য ও সমর্থকদের নিয়ে থলিপাড়ার বাড়িতে যাচ্ছিলেন ওই ইউপি সদস্য। পথিমধ্যে মাইসছড়ি-নুনছড়ি সড়কের থলিপাড়া মসজিদের আগে আনুমানিক ৩০-৪০ জন অস্ত্রধারী তাদের ওপর হামলা করে পালিয়ে যায়।    

খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক নয়নময় ত্রিপুরা জানান, নিহত কালো বন্ধু ত্রিপুরার সারা গায়ে জখমের চিহ্ন রয়েছে। আহতদেরও মাথা, হাত ও পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করা রয়েছে। 

আহতদের মধ্যে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রদীপ ত্রিপুরা ও যতন ত্রিপুরাকে চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে।

খাগড়াছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আম্রে মারমা জানান, দীর্ঘদিন ধরে কালো বন্ধু ত্রিপুরা ও চিরঞ্জিত ত্রিপুরার মধ্যে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিল। দুইবছর আগে চিরঞ্জিত খুন হওয়ার পর থেকে এলাকা ছাড়া ছিল কালো বন্ধু ত্রিপুরাসহ তার স্বজন-সমর্থকরা। দীর্ঘদিন পর আজ (শুক্রবার) এলাকায় ফেরার পথে তাদের ওপর হামলা হয়েছে শুনে হাসপাতালে দেখতে গিয়েছি। 

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) এমএম সালাহউদ্দিন জানান, পূর্বশত্রুতার জেরে কালো বন্ধু ত্রিপুরাসহ তার সমর্থকদের ওপর হামলা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের ধরতে ইতোমধ্যে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। 

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ১১ মে রাতে ভূমি বিরোধের জেরে পিতা-পুত্র খুনের ঘটনায় প্রধান আসামি হিসেবে অভিযুক্ত হয়ে দীর্ঘদিন কারাগারে ও এলাকার বাইরে ছিলেন নিহত কালো বন্ধু ত্রিপুরাসহ তার সমর্থকরা। প্রায় দুই বছর পর স্বজন ও সমর্থকদের নিয়ে নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন তিনি।