• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৪ রাত

গোপালগঞ্জে শিক্ষকের নির্যাতনে ছাত্রী হাসপাতালে

  • প্রকাশিত ০৪:৩৫ বিকেল এপ্রিল ৯, ২০১৯
গোপালগঞ্জ
গোপালগঞ্জের মানচিত্র

অভিযুক্ত শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট না পড়ার কারণে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ ছাত্রীর মায়ের

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার একটি বিদ্যালয়ে শিক্ষকের শারীরিক নির্যাতনের কারণে এক ছাত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

সোমবার (৮ এপ্রিল) সকালে মুকসুদপুর উপজেলার কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট না পড়ায় ওই শিক্ষক ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে নির্যাতন করেছে বলে ছাত্রীর মা অভিযোগ করেছেন। এদিকে নির্যাতনের শিকার ওই স্কুল ছাত্রী আতংকে স্কুলে যাবেনা বলেও জানিয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। 

ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা বলেন, “স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক বিধান বিশ্বাস আমার মেয়েকে প্রাইভেট পড়াতে চেয়েছিলেন। কিন্তু আমরা তার কাছে প্রাইভেট পড়াতে পাঠাইনি। এ কারণে ওই শিক্ষক আমার মেয়ের ওপর নাখোশ ছিলেন। সোমবার সকাল ৬ টার দিকে আমার মেয়ে তার চাচাতো ভাইকে সাথে নিয়ে স্কুলের অপর এক শিক্ষকের বাসায় প্রাইভেট পড়তে যায়।” শিক্ষক আসতে দেরি করায় তারা শ্রেণিকক্ষের দরজার কাছে দাঁড়িয়ে দুষ্টুমি করছিলো বলেও তিনি জানান। এ সময় স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক বিধান বিশ্বাস অন্য শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়াচ্ছিলেন। হঠাৎ ওই শিক্ষক ক্ষিপ্ত হয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রীকে প্রচণ্ড মারধর করেন। 

এ ঘটনার উপযুক্ত বিচার চেয়ে তিনি বলেন, “এ ঘটনার পর তার মেয়ের ডান কানের গোড়ালি ফুলে ওঠে। তাকে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি। এখন সে কানে কম শুনছে।” এমনকি ওই শিক্ষকের আতংকে এখন স্কুলে যেতে চাইছেনা বলেও তিনি জানান।

অভিযুক্ত শিক্ষক বিধান বিশ্বাস বলেন, “দুষ্টুমি করতে করতে স্কুলের দরজা ভেঙ্গে ফেলায় তাকে একটি চড় মেরেছি মাত্র। প্রাইভেট পড়ানোর বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।”

এ প্রসঙ্গে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মনিমোহন মন্ডল বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, “এ ঘটনার পর আমি অভিযুক্ত শিক্ষক ও অন্যান্যদের সাথে নিয়ে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বৈশাখীকে দেখতে গিয়েছিলাম। বিষয়টির উপযুক্ত বিচার দেয়ার জন্য বৈশাখীর পরিবারের কাছে আমি প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।”