• বুধবার, জুলাই ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৩৬ রাত

প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানালেন মির্জা ফখরুলের ভাই

  • প্রকাশিত ০৮:৪৪ রাত এপ্রিল ৯, ২০১৯
মির্জা ফয়সল আমিন
মঙ্গলবার ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় একটি রাস্তার কাজে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র মির্জা ফয়সল আমীন। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

তিনি বলেন, আজকে আমি মেয়র আছি, আগামীতে নতুন মেয়র আসবেন। কিন্তু রাস্তাঘাট, এলাকার জনগণ থেকে যাবে। এখানে দল বড় কথা নয়, এখানে উন্নয়নটা এলাকার জনগণের স্বার্থটাই সবচেয়ে বড়।

গত ৩ বছরে কাংক্ষিত উন্নয়ন করে জনসাধারণের আশা-আকাঙ্খা পূরণ করতে না পারার কথা স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে এক্ষেত্রে সরকারকে দায়ী করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের পৌর মেয়র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের ছোট ভাই মির্জা ফয়সল আমীন। তবে, অবশেষে ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় উন্নয়ন কাজ শুরু করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

সোমবার শহরের স্বর্ণকার পট্টি থেকে মির্জা পেট্রোল পাম্প পর্যন্ত পৌনে দুই কিলোমিটার রাস্তার পুনঃপাকাকরণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঠাকুরগাঁও পৌরসভার মেয়র মির্জা ফয়সল আমীন। 

মির্জা ফয়সল বলেন, পৌরবাসীর ভোটের মাধ্যমে তিন বছর আগে পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়েছি। কিন্তু বিগত ৩ বছরে তাদের জন্য কোনও উন্নয়নমূলক কাজ করতে পারিনি। এই ব্যর্থতার দায় স্বীকার করেন তিনি।

তিনি বলেন, পৌরসভার উন্নয়নের জন্য ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেনের সঙ্গে তার রাজধানীর বাসায় দেখা করেছি। তার কাছ থেকে ডিও লেটার নিয়ে কাজের জন্য তদবির করেছি। সংসদ সদস্য নিজেই এ বিষয়ে বহুবার সহযোগিতা করেছেন। কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য, আমি বিরোধীদল সমর্থিত মেয়র হিসেবে গত ৩ বছরে পৌরসভার কোনও উন্নয়ন কাজ করতে পারিনি। 

বিষয়টিকে নিজের পাশাপাশি ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ৫৬ হাজার ভোটার ও বসবাসরত সবার ভাগ্য বলে মন্তব্য করেন মেয়র ফয়সল।

তিনি বলেন, আমি ধন্যবাদ জানাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। তিনি ঠাকুরগাঁও পৌরসভার দাবিগুলো বাস্তবায়ন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

ফয়সল আমীন বলেন, আজকে আমি মেয়র আছি, আগামীতে নতুন মেয়র আসবেন। কিন্তু রাস্তাঘাট, এলাকার জনগণ থেকে যাবে। এখানে দল বড় কথা নয়, এখানে উন্নয়নটা এলাকার জনগণের স্বার্থটাই সবচেয়ে বড়। 

সড়ক পুনঃনির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন। পরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফয়সল আমীনের বক্তব্যের উত্তরে বলেন, ঠাকুরগাঁও পৌরসভা মডেল পৌরসভা হবে, ঠাকুরগাঁওকে সদর উপজেলায় পরিণত করা হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিনুল ইসলাম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুহা. সাদেক কুরাইশী, ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাব সভাপতি মনসুর আলী, জেলা যুবলীগ সভাপতি আব্দুল মজিদ আপেল প্রমুখ।