• বৃহস্পতিবার, জুন ২৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩০ রাত

জাহালমকে দেখতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

  • প্রকাশিত ০২:৩৯ দুপুর এপ্রিল ১০, ২০১৯
জাহালম
কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে বাইরে ভাই সাহানুরের সাথে জাহালম। ইউএনবি

২৬ মামলায় ভুল আসামি হয়ে তিন বছর ধরে কারাগারে কাটাতে হয় জাহালমকে

ভুল আসামি হয়ে ২৬ মামলায় কারাগারে থাকার পর জামিনে মুক্তি পাওয়া জাহালমকে দেখতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ১৭ এপ্রিল তাকে উপস্থিত থাকতে বলেছেন আদালত। ওই দিন এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হবে।

বুধবার (১০ এপ্রিল) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ৬ মার্চ জাহালমকে ২৬ মামলায় ভুল আসামি করে অভিযোগপত্র দাখিলের যাবতীয় নথি তলব করেন হাইকোর্ট। ৯ এপ্রিলের মধ্যে এসব নথি দাখিল করতে বলা হয়।

পরবর্তীতে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান আরও সময় চাইলে আদালত আগামী বুধবার পরবর্তী শুনানির দিন রেখে জাহালমকে দেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

হাইকোর্টে নজরে আনা এ মামলার আইনজীবী অমিত দাশ গুপ্ত এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে আবু সালেক নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা করে দুদক। কিন্তু দুদকের ভুলে সালেকের বদলে তিন বছর ধরে কারাগারে কাটাতে হয়েছে টাঙ্গাইলের জাহালমকে।

এ নিয়ে গত ৩০ জানুয়ারি একটি জাতীয় দৈনিকে ‘স্যার, আমি জাহালম, সালেক না’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনটি সেদিন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসানের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অমিত দাশ গুপ্ত। পরে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করে।

সব পক্ষের বক্তব্য শুনে গত ৩ ফেব্রুয়ারি নিরপরাধ পাটকল শ্রমিক জাহালমকে অর্থ জালিয়াতির মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে ওইদিনই মুক্তির নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। সে অনুযায়ী সেদিন তিনি মুক্তিও পান। একই সঙ্গে এই ঘটনার বিস্তারিত প্রতিবেদন হলফনামা আকারে দুদককে দাখিলের নির্দেশ দিয়ে ৬ মার্চ পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করে।