• রবিবার, মে ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫৭ রাত

নুসরাত হত্যা: শাস্তির দাবিতে গণভবন থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত মানববন্ধন

  • প্রকাশিত ০৭:২৫ রাত এপ্রিল ১৩, ২০১৯
মানববন্ধন
নুসরাত জাহান রাফি হত্যার বিচারের দাবিতে শনিবার (১৩ এপ্রিল) রাজধানীর গণভবন থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত বিভিন্ন রাজনৈতিক ও বাম ছাত্র সংগঠন, ছাত্রলীগ, সাংস্কৃতিক সংগঠন, নারী অধিকার সংগঠন এবং বিভিন্ন এনজিও’র উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। ফোকাস বাংলা

বিভিন্ন রাজনৈতিক ও বাম ছাত্র সংগঠন, ছাত্রলীগ, সাংস্কৃতিক সংগঠন, নারী অধিকার সংগঠন এবং বিভিন্ন এনজিও’র উদ্যোগে এই কর্মসূচি পালিত হয়

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার বিচারের দাবিতে শনিবার (১৩ এপ্রিল) রাজধানীর গণভবন এলাকা থেকে বঙ্গভবন এলাকা পর্যন্ত মানববন্ধন পালিত হয়েছে। সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এই কর্মসূচি পালিত হয়। 

মানববন্ধনটি রাজধানীর আসাদগেট, কলাবাগান, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, এলিফেন্ট রোড, বাটা সিগন্যাল, কাঁটাবন, শাহবাগ, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট, হাইকোর্ট, প্রেসক্লাব, পল্টন মোড়, দৈনিক বাংলা মোড়, রাজউক ভবন এলাকায় অনুষ্ঠিত হয়।

বিভিন্ন রাজনৈতিক ও বাম ছাত্র সংগঠন, ছাত্রলীগ, সাংস্কৃতিক সংগঠন, নারী অধিকার সংগঠন এবং বিভিন্ন এনজিও’র উদ্যোগে এই কর্মসূচি পালিত হয়।

বঙ্গভবনের সামনে মানববন্ধনে সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, "কোনও অপরাধের বিচার না হওয়াই এই হত্যাকাণ্ডের কারণ। ১৬ কোটি মানুষ প্রতিবাদ জারি রেখেছে। অপরাধীরা জানে সরকারি দলে থাকলে কোনও অপরাধের বিচার হয় না। শাসক দল এর সঙ্গে জড়িত। অপরাধীরা যখন যে দল ক্ষমতায় আসে তাদের ছত্রছায়ায় অপরাধী কর্মকাণ্ড চালায়। তারা জানে সরকারি দলে থাকলে পার পাওয়া যায়। বর্তমান সরকার নির্বাচনের আগের দিন ভোট দিয়ে ক্ষমতায় এসেছে। যারা এই কাজে সহায়তা করেছে তাদের পুরস্কার হলো অবাধে লুটপাট, হত্যা এবং ধর্ষণ।"

মানববন্ধনে আসাদগেট এলাকায় উপস্থিত অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কাফরুল থানা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কাফরুল থানা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন মোহাম্মদপুর-আদাবর থানা, বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী মোহাম্মদপুর শাখা, ঘাসফড়িং খেলাঘর আসর, ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যান্ড আর্কিটেক্টস ফর এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, আনন্দদ্যুতি খেলাঘর আসর।

এ সময় আনন্দদ্যুতি খেলাঘর আসরের সভাপতি লাবনী শবনম মুক্তি তার বক্তব্যে বলেন, "নুসরাতের মুখে আমার মেয়ের মুখ দেখতে পাই। দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে আজ এমন পরিবেশ হয়েছে। আমরা নুসরাত হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো।"

প্রসঙ্গত, নুসরাত জাহান রাফি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিমের পরীক্ষার্থী ছিলেন। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে এর আগেও ওই ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠে। নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি দেওয়া হচ্ছিল। ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথমপত্রের পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এ সময় তাকে কৌশলে একটি বহুতল ভবনে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন দেওয়া হয়।

 বুধবার (১০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টায় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নুসরাত মারা যান।