• রবিবার, মে ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫৭ রাত

নবনির্মিত স্কুলে ক্লাস শুরুর আগেই ভবনে ফাটল!

  • প্রকাশিত ০৮:৩৮ রাত এপ্রিল ১৬, ২০১৯
নবনির্মিত ভবন
টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় নবনির্মিত বাওয়ার কুমারজানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু আগেই ফাটল দেখা গেছে নবনির্মিত ভবনটিতে। ছবি: আব্দুল্লাহ আল নোমান/ ঢাকা ট্রিবিউন

এ কারণে বিদ্যালয়টিতে ক্লাস নিতে ভয় করছে বলে জানান বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক দেলোয়ারা বেগম

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় নবনির্মিত বাওয়ার কুমারজানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু আগেই ভবনটিতে ফাটল দেখা গেছে। এছাড়া সিঁড়ি ও দুইতলার মেঝের পলেস্তারা উঠে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক দেলোয়ারা বেগমের।

তিনি বলেন, “নিম্নমানের কাজ করার কারণে বিদ্যালয়ের নবনির্মিত সিঁড়ি ভেঙে পড়েছে।” এ কারণে বিদ্যালয়টিতে ক্লাস নিতে ভয় করছে বলেও তিনি জানান।

উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্র জানা যায়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে চাহিদা ভিত্তিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মির্জাপুর পৌরসভার ২৬নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুইতলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণ কাজের বরাদ্দ দেয়া হয়। ভবনটি নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় ৩৩ লাখ ৬৬ হাজার ১৩৫ টাকা। নির্মাণের এ কাজ পায় স্থানীয় মেসার্স হাজী ট্রেডার্স নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। 

মির্জাপুর পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম বলেন, “৩১ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট দিতে গেলে জুতার সাথে পলেস্তারা উঠে গেছে।"  

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুর রউফ দুলাল বলেন, “বিদ্যালয়ের নবনির্মিত সিঁড়ি ভেঙে পড়েছে, দুইতলার জানালা খসে পড়েছে। এছাড়া ছাদের পলেস্তারা উঠে যাচ্ছে। বিষয়টি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করা হয়েছে।” 

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল মালেক জানান, “বিষয়টি জানা নেই। তবে খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।”   

এ প্রসঙ্গে মেসার্স হাজী ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী ঠিকাদার মনিরুজ্জামান বলেন, “ভবনটি নির্মাণে অনিয়মের আশ্রয় নেওয়া হয়নি। সঠিকভাবেই কাজ সমাপ্ত হয়েছে। সিঁড়ি, দোতলার মেঝে ও জানালায় কিছু ত্রুটি দেখা দিয়েছে। হস্তান্তরের আগেই সংস্কার করা হবে।”