• সোমবার, আগস্ট ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:৪৪ বিকেল

আইএসে যোগদানকারী কেউ দেশে ফিরতে চাইলে আইনানুগ ব্যবস্থা

  • প্রকাশিত ০৬:০৮ সন্ধ্যা এপ্রিল ২৩, ২০১৯
মনিরুল ইসলাম
মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত ‘মিট উইথ মনিরুল ইসলাম’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিসম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান পুলিশ কমিশনার মনিরুল ইসলাম। ঢাকা ট্রিবিউন

আমাদের দেশে শ্রীলংকার মতো জঙ্গি বা সন্ত্রাসী হামলা চালানোর মতো সক্ষমতা জঙ্গিদের নেই বলেও দাবি করেন কাউন্টার টেরোরিসম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিসম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান, পুলিশ কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগদানকারী কেউ যদি বাংলাদেশে ফিরতে চায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ১১.৩০টায় রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত ‘মিট উইথ মনিরুল ইসলাম’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টারসস অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব) এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বাংলাদেশ থেকে জঙ্গি সংগঠন আইএস এ যোগ দেয়া সদস্যরা দেশে ফিরতে চাইলে তাদের দেশে ফেরত নেয়া হবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "বাংলাদেশ থেকে মূলত ২০১৪ সালের শেষদিকে কতিপয় লোক আইএস’ এ যোগদান করেছে কথিত আছে। আমাদের ধারণা মতে তাদের কেউ ধরা পড়েছে, কেউ নিহত হয়েছে অথবা কেউ চিহ্নিত হয়েছেন। তারা যদি এখন দেশে ফিরতে চায় তাহলে তাদেরকে অবশ্যই এয়ারক্রাফট দিয়ে দেশে ফিরতে হবে। এর জন্য তাদের পাসপোর্ট লাগবে। যেহেতু তারা ২০১৪  সালের শেষের দিকে গিয়েছে তাদের পাসপোর্ট এর মেয়াদউত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ার কথা। দেশে ফিরতে হলে তাদেরকে নতুন করে পাসপোর্ট আবেদন করতে হবে নতুবা ট্রাভেল ডকুমেন্ট গ্রহণ করতে।"

তিনি আরও বলেন, "আমরা সিরিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে যখন পাসপোর্ট আবেদন পাচ্ছি সেগুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে যাচাই-বাছাই করে তাদেরকে পাসপোর্ট দিচ্ছি। তাই আমাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশে আসা সম্ভব নয়। তারপরও কেউ যদি ফিরে আসতে চায় তাহলে এয়ারপোর্টেই তাদের গ্রেফতার করা হবে।"

বাংলাদেশে শ্রীলঙ্কার মতো হামলার সম্ভাবনা নেই বলেও দাবি করেন কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান। তিনি বলেন, "সাম্প্রতিককালে শ্রীলঙ্কায় বর্বর সন্ত্রাসী হামলা একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা।  আমাদের দেশে এরুপ জঙ্গি বা সন্ত্রাসী হামলা চালানোর মতো সক্ষমতা জঙ্গিদের নেই। আমরা এ বিষয়ে তৎপর রয়েছি।"

বাংলাদেশে আইএস’র খলিফা নিয়োগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা আইএস এর নিজস্ব দাবি। বাংলাদেশ তাদের কোন খলিফা নেই। 

রোহিঙ্গাদের মধ্য থেকে জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার সম্ভাবনা আছে কিনা এমন প্রশনের জবাবে মনিরুল ইসলাম বলেন, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের জন্য একটি বড় সমস্যা। তারা যদি দীর্ঘদিন এ দেশে থাকে তাহলে অপরাধমূলক কার্যক্রমসহ অনেক ধরণের কাজে জড়িত হয়ে যেতে পারে।