• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:১৪ রাত

ঈশ্বরদীতে এমপিপুত্রের বিরুদ্ধে মে দিবস পালনে বাধা প্রদানের অভিযোগ

  • প্রকাশিত ০৬:১৪ সন্ধ্যা মে ২, ২০১৯
ঈশ্বরদী সংবাদ সম্মেলন
মে দিবসের কর্মসূচিতে বাধা দেওয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করে পাবনার অটো-টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়ন। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

তারা শ্রমিক সংগঠনটির সাইনবোর্ড ভেঙে ফেলেন এবং মে দিবসের কর্মসূচি পালন না করার জন্য শাসিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা শ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোঁজ করে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

পাবনার ঈশ্বরদীতে মে দিবসে শ্রমিক সংঠনের অনুষ্ঠান পণ্ড করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ও সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ এমপির ছেলে শিরহান শরীফ তমালের বিরুদ্ধে। 

বৃহস্পতিবার (২ মে) দুপুরে পাবনা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তমাল বাহিনীর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, নির্যাতনসহ বেশকিছু অভিযোগ তুলে এসবের প্রতিকার চেয়েছেন বাংলাদেশ অটোরিক্সা-অটোটেম্পো পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে গোলাম ফারুক অভিযোগ করেন, শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে সারাদেশের মতো পাবনাতেও অটোরিক্সা-অটোটেম্পো-মিশুক শ্রমিক ইউনিয়নও নির্বাচিত কমিটির মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছিল। কিন্দু দীর্ঘদিন ধরে ঈশ্বরদীসহ পাবনা জেলার বিভিন্ন স্থানে ইউনিয়নের অফিস ও টেম্পো স্ট্যান্ডগুলো স্থানীয় চাঁদাবাজরা দখল করে জোরপূর্বক শ্রমিকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে আসছে। চাঁদাবাজদের অত্যাচারে দরিদ্র শ্রমিকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। শ্রম অধিদপ্তরের তদন্তে শ্রমিক ইউনিয়ন সাবেক ভূমিমন্ত্রী পরিবারের দখলে থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হলেও, স্থানীয় প্রশাসনের অসহযোগীতায় সাধারণ শ্রমিকরা অফিস ও স্ট্যান্ডে তাদের অধিকার ফিরে পাননি।

তিনি আরও জানান, এ বছর ঈশ্বরদীতে মে দিবসের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে মঙ্গলবার বিকেলে শোভাযাত্রার প্রস্তুতি নেওয়ার সময় শিরহান শরীফ তমালের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী হামলা করে ফেডারেশন ও স্থানীয় শ্রমিক ইউনিয়নের ওপর। তারা শ্রমিক সংগঠনটির সাইনবোর্ড ভেঙে ফেলেন এবং মে দিবসের কর্মসূচি পালন না করার জন্য শাসিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা শ্রমিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খোঁজ করে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। প্রাণভয়ে শ্রমিক ফেডারেশন নেতৃবৃন্দ কর্মসূচি পালন করতে পারেনি।

পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে অসহযোগীতার অভিযোগ তুলে অটোটেম্পো শ্রমিক ফেডারেশন নেতৃবৃন্দ বলেন, একাধিকবার জানানোর পরেও স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন শ্রমিক ইউনিয়ন অফিস ও টেম্পোস্ট্যান্ড উদ্ধারে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। মে দিবসের কর্মসূচি পালনে সহযোগীতার আশ্বাস দিয়েও শ্রমিকদের নিরাপত্তারও ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। 

অবিলম্বে এ ঘটনার প্রতিকার না হলে দেশব্যাপী কঠোর আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন অটোটেম্পো-অটোরিক্সা শ্রমিকরা।

এ বিষয়ে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাহাউদ্দিন ফারুকী ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, মে দিবস পালনে বাধা প্রদানের বিষয়ে কোনও লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায় নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগ সম্পর্কে কথা বলতে বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শিরহান শরীফ তমালের ব্যক্তিগত মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

উল্লেখ্য, ঈশ্বরদী অটোটেম্পো স্ট্যান্ডের দখল ও নিয়ন্ত্রণ নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে একাধিকবার রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।