• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৮ রাত

বাসে নার্সকে ধর্ষণের পর হত্যা: আসামিদের ৮ দিনের রিমান্ড

  • প্রকাশিত ০৬:০৪ সন্ধ্যা মে ৮, ২০১৯
কিশোরগঞ্জ আসামি
কিশোরগঞ্জে নার্স তানিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত আসামিদের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

ময়নাতদন্তে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত পাওয়া গেছে।

ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের উদ্দেশে ছেড়ে আসা স্বর্ণলতা পরিবহনে নার্স তানিয়াকে ধর্ষণ ও হত্যা মামলার ৫ আসামিকে ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আল মামুন। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার ওসি (তদন্ত) সারোয়ার জাহান আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালত ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিরা হচ্ছেন- বাস চালক নূরুজ্জামান, তার সহকারী লালন মিয়া, মো. রফিকুল ইসলাম রফিক, মো. খোকন মিয়া ও বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংরা বকুল। 

মঙ্গলবার (৭ মে) রাতে শাহিনুর আক্তার তানিয়ার বাবা গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে পাঁচজনকে আসামি করে বাজিতপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। 


আরও পড়ুন-চলন্ত বাসে নার্সকে 'ধর্ষণের' পর হত্যা, আটক ২ 


প্রসঙ্গত, রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে কর্মরত নার্স তানিয়া গত সোমবার বিকেলে মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে স্বর্ণলতা পরিবহনের একটি বাসে করে বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। বাসটি কিশোরগঞ্জ-ভৈরব সড়কের বাজিতপুর উপজেলার বিলপাড় গজারিয়া জামতলী এলাকায় পৌঁছলে বাসের চালক ও সহকারীসহ অভিযুক্তরা ধর্ষণ করে তানিয়াকে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয় বলে অভিযোগ ওঠে। 

মুমূর্ষু অবস্থায় তানিয়াকে উদ্ধার করে রাত পৌনে ১১টার দিকে কটিয়াদি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে বুধবার বিকেলে তানিয়ার মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। জেলার সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত পাওয়া গেছে।