• রবিবার, জুন ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:২৬ রাত

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ‘সম্মানহানী’, দুই জাবি শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ ছাত্রলীগের

  • প্রকাশিত ০৫:২১ সন্ধ্যা মে ১০, ২০১৯
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছেও লিখিত অভিযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ছাত্রলীগ নেতারা।

ফেসবুকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ‘বিকৃতি’ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘সম্মানহানীর’ অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)-র দুই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার (১০ মে) দুপুর দুইটার দিকে শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হামজা রহমান অন্তর এ অভিযোগ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র ফাহিম হোসেনের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ ‘বিকৃতি’ এবং নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ছাত্রী ক্যামেলিয়া শারমিন চূড়ার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘সম্মানহানী’র অভিযোগ আনা হয়েছে। তারা দুজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭তম আবর্তনের শিক্ষার্থী।     

সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার (০৯ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে ফাহিম হোসেন তার ফেসবুক আইডি থেকে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের একটি ছবি পোস্ট করেন। ছবিটির উপরের অংশে লেখা ছিল, ‘-আলুর চপ কই? -আজকে বানাই নাই’। ছবিটির নিচের অংশে লেখা, ‘আজ দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি।’

ফাহিম হোসেন ছবিটির ক্যাপশনে লিখেন, ‘দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে সেট মেন্যু প্লেটার নিয়ে বসছি।’ 

ছবিটি পোস্ট করার পরপরই শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে এর বিচার দাবি করেন। পোস্টদাতাকে হুমকিও দেন অনেকে।

ওই পোস্টকে কেন্দ্র করেই থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ছাত্রলীগ নেতা হামজা রহমান। অভিযুক্ত ফাহিম হোসেনের ফোন নাম্বার বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।      

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ক্যামেলিয়া শারমিন চূড়া এক ফেসবুক পোস্টে লিখেন, “আমাদের বুয়ার নাম হাসিনা। মা বলতেসে, ‘হাসিনা অনেক সৎ। কোনো জায়গার জিনিস কোনো জায়গায় সরায় না। যেই ময়লা যেখানে ছিল, সে ঝেরে মুছে যাবে, তবুও দেখছি ময়লা অইখানেই আছে। সরেনি।” 

২০১৭ সালের ১৩ ডিসেম্বর তিনি লেখাটি পোস্ট করেন। 

অভিযোগ প্রসঙ্গে ক্যামেলিয়া শারমিন চূড়া বলেন, ‘‘কাউকে ব্যঙ্গ করার উদ্দেশ্যে লেখাটি পোস্ট করা হয়নি। আমাদের বাসার বুয়ার নাম আসলেই হাসিনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানহানীর উদ্দেশে লেখার প্রশ্নই ওঠে না।’’          

অভিযোগকারী ছাত্রলীগ নেতা হামজা রহমান অন্তর বলেন, ‘‘দুই শিক্ষার্থী ফেসবুকে জাতির জনক এবং প্রধানমন্ত্রীর সম্মানহানীর মাধ্যমে যে ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণ দেখিয়েছেন আমি রাষ্ট্রীয় আইনে তার বিচার চাই। ক্যামেলিয়া শারমিন বিভিন্ন সময় প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ লেখা ফেসবুকে পোস্ট করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছেও আমি লিখিত অভিযোগ দেব।’’

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক দিপু বলেন, ‘‘অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। তবে তা এখনও মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হয়নি। বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।’’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) আ. স. ম. ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, ‘‘ফেসবুকে আলোচনার মাধমে বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। বঙ্গবন্ধু  ও ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে ট্রল করা দুঃখজনক ও হতাশাজনক। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তা-ব্যাক্তিদের সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি সুরাহা করা হবে।’’