• রবিবার, মে ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:১৩ দুপুর

গ্রেপ্তারের ‘৪৫ মিনিট’ পরই জামিনে মুক্ত ধর্ষণের হুমকিদাতা সেই ছাত্রলীগ নেতা

  • প্রকাশিত ০৫:১৪ সন্ধ্যা মে ১৪, ২০১৯
সিলেট ছাত্রলীগ সারোয়ার
ছবি : সংগৃহীত

আদালত শুনানি শেষে ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেনের জামিন মঞ্জুর করেন।

সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসককে হত্যা ও ধর্ষণের হুমকি দেওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় জামিন পেয়েছেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন চৌধুরী। 

বাংলা ট্রিবিউনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুরে সারোয়ার গ্রেফতার হওয়ার আগেই সিলেট অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোস্তাইন বিল্লাহ আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন। ফলে গ্রেপ্তারের ৪৫ মিনিটের মাথায়ই ছাড়া পেয়ে যান তিনি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারী আইয়ুব আলী। তিনি জানান, আদালত শুনানি শেষে ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেনের জামিন মঞ্জুর করেন।

আদালত সূত্র জানায়, মামলাটি জামিন যোগ্য ধারায় হওয়াতে আদালত দক্ষিণ সুরমা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেনকে জামিন দেন।

সারোয়ার হোসেনকে জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়ে সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিঞা বলেন, বেলা আড়াইটার দিকে আদালতের গেট থেকে তাকে ধরার পর সারোয়ার পুলিশকে জানায় সে জামিন নিয়েছে। পরবর্তীতে আদালতের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই শেষে তাকে সোয়া ৩টার দিকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এর আগে সোমবার দিবাগত রাতে সরোয়ারকে প্রধান আসামি এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৮-১০ জনকে অভিযুক্ত করে কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. ফেরদৌস হাসান। 

সোমবার সংবাদ সম্মেলন করে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সরোয়ারকে গ্রেপ্তারের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন। 

এদিকে, ছাত্রলীগ নেতা কর্তৃক ইন্টার্ন নারী চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকি এবং লাঞ্ছনার প্রতিবাদে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। 

চতুর্থ  দিনের মতো মঙ্গলবার সকাল থেকে  দুপুর ১টা পর্যন্ত সিলেট বিভাগের সকল হাসপাতালে কর্মবিরতি পালন করেন তারা। দুপুরে তারা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। 

তাদের অন্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে-মঙ্গলবার বিকেল ৪ থেকে ৬টা পর্যন্ত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককের প্রাইভেট প্রাকটিস বন্ধ রাখা এবং বিএমএ সভাপতি ও সম্পাদক, সিভিল সার্জন, ডেপুটি ডিরেক্টও (স্বাস্থ্য), মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার ও জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে শিক্ষানবিশ চিকিৎসককে অকথ্য ভাষায় গালাগালের পাশাপাশি অস্ত্র উঁচিয়ে হত্যা এবং ধর্ষণের হুমকি দেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আজাদুর রহমানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সারোয়ার হোসেন। এ ঘটনার ভিডিও ইতোমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।