• বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:২৫ বিকেল

অবহেলায় মারা গেল সেই হরিণটি

  • প্রকাশিত ১০:০৫ সকাল মে ২২, ২০১৯
হরিণ
সোনাগাজী মডেল থানায় বেঁধে রাখা চিত্রা হরিণ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

পুলিশ হরিণটি উদ্ধার করে দীর্ঘ চার ঘন্টা বিনা চিকিৎসায় থানায় আটকে  রাখে। পরে বন বিভাগের কর্মকর্তারা হরিণটি থানা থেকে নিয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে গেলেও চিকিৎসকের অভাবে হরিণ চিকিৎসা দিতে পারেননি।

ফেনীর লোকালয় থেকে উদ্ধারকৃত চিত্রা হরিণটি চিকিৎসার অভাবে  মারা গেছে। 

২১ মে, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে হরিণটি মারা যায়। 

বন বিভাগের সোনাগাজি উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন মুন্সী এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সোনাগাজীর চরচান্দিয়া ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে হরিণটি উদ্ধার করে এলাকাবাসী। 

রেঞ্জ কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন মুন্সী বলেন,“ আটক করার সময়  চিত্রা হরিণটি সামান্য আহত হয়েছিল। হরিণটি চিকিৎসা ও অবমুক্ত করা জন্য বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে আমার কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয় । হরিণটি বুঝিয়ে নেওয়ার পর দ্রত জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। কিন্তু জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসটি বন্ধ পাই। চিকিৎসকের জন্য দীর্ঘ সময়  অপেক্ষা করেও কোনো চিকিৎসক পাওয়া যায়নি। ফলে আহত হরণটি বিনা চিকিৎসায় মারা যায়।”

বন বিভাগের ফেনী সদর উপজেলা রেঞ্জ  কর্মকর্তা তপন চন্দ্র দাস বলেন, “হরিণটা ধরার সময় আহত হয়েছিল। এর পর দীর্ঘ সময় সোনাগাজি মডেল থানায় চিকিৎসাহীন অবস্থায় পড়ে রয়ে ছিল । মৃতদেহটি ময়নাতন্ত্রের জন্য রাখা হয়েছে । বুধবার সকালে হরিণটির ময়নাতদন্ত করা হবে।” 

সোনাগাজী  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোহেল পারভেজ বলেন, “হরিণটির মৃত্যুর জন্য কারো দায়িত্ব অবহেলা আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।”   

প্রসঙ্গত, ২১ মে, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সোনাগাজীর চরচান্দিয়া ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর এলাকায় বন ছেড়ে লোকালয়ে এসে পড়ে একটি চিত্রা হরিণ।   

গ্রামবাসী প্রায় দেড় ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আনুমানিক ৭০ কেজি ওজনের হরিণটি আটক করে পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ হরিণটি উদ্ধার করে দীর্ঘ চার ঘন্টা বিনা চিকিৎসায় থানায় আটকে  রাখে। পরে বন বিভাগের কর্মকর্তারা হরিণটি থানা থেকে নিয়ে জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে গেলেও চিকিৎসকের অভাবে হরিণ চিকিৎসা দিতে পারেননি।