• মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৩ দুপুর

বগুড়ায় ডাকসুর ভিপি নুরের ওপর 'ছাত্রলীগের' হামলা

  • প্রকাশিত ০৯:২৭ রাত মে ২৬, ২০১৯
নুর
বগুড়ায় শহরে একটি ইফতার ও দোয়া মাহফিলে ঢাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরসহ ১৫ জন হামলার শিকার হন। ছবি : ঢাকা ট্রিবিউন

রোববার শহরের পৌর পার্কে উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে ইফতার ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সেখানে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরকে প্রধান অতিথি করা হয়েছিল।

বগুড়ায় শহরে একটি ইফতার ও দোয়া মাহফিলে যোগ দিতে গিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ঢাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরসহ ১৫ জন ছাত্রলীগের হামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। 

আজ রোববার বিকালে শহরের পৌর পার্কের উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তন চত্ত্বরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। 

জানা গেছে, হামলার পর পুলিশ নুরকে উদ্ধার করে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘটনার সময় ছবি তোলায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল যমুনা টিভির ক্যামেরাপারসন শাহনেওয়াজ শাওনকে মারপিট করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ বগুড়া জেলা আহ্বায়ক রাকিবুল হাসান রাকিব জানান, রোববার শহরের পৌর পার্কে উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে ইফতার ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সেখানে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরকে প্রধান অতিথি করা হয়েছিল।

রাকিবের দাবি, অনুষ্ঠানের খবর পেয়ে ছাত্রলীগের সরকারি আজিজুল হক কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক আবদুর রউফের নেতৃত্বে সংগঠনটির ৩০ থেকে ৪০ জন নেতাকর্মী মিলনায়নের কাছে অবস্থান নেন। বিকেল ৫টার দিকে একটি মাইক্রোবাসে ১৩ সঙ্গী নিয়ে নুর অনুষ্ঠানস্থলে আসেন। গাড়ি থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রলীগের সমর্থকরা তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। তারা নুর ও অন্যদের বেধড়ক মারপিট করে। 

স্টেডিয়াম পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মোস্তাফিজ হাসান জানান, ভিপি নুর ও তার সফর সঙ্গীদের ওপর ৩০ থেকে ৪০ জনের একদল দুর্বৃত্ত হামলা চালিয়েছে। তিনি তাৎক্ষণিকভাবে তাদের কাউকে চিনতে পারেননি। 

বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোকাইয়া আকতার জানান, তার কাছে নুর, রাতুল, আপন ও ফারুক নামের চারজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের মধ্যে ভিপি নুরের মুখ ও কপালে আঘাত করা হয়েছে। 

এ বিষয়ে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাস বলেছেন, রোববার বিকেলে শহরে টিটু মিলনায়তনে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিলের অনুষ্ঠান চলছিল। এ সময় পাশে উডবার্ন পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে হৈ-চৈ শুনে সেখানে কয়েকজন নেতাকর্মীকে পাঠানো হয়। তারা সেখানে গিয়ে দেখেন, ডাকসুর ভিপি নুর এসেছেন। ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীরা বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেছে। তখন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে প্রশ্ন করেন, 'ডাকসুর ভিপি হয়ে আপনি ছাত্রশিবিরের আয়োজিত অনুষ্ঠানে কেন এসেছেন?' তাদের এ কথায় ভিপি নুর ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, 'আমি শিবিরের অনুষ্ঠানে আসবো না অন্য কারো অনুষ্ঠানে আসবো তাতে তোমাদের কী?' এ নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে দুপক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি হয়েছে। 

এর আগে গতকাল শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোটা সংস্কার আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া শাখার উদ্যোগে শহরের মসজিদ সড়কের গ্র্যান্ড এ মালেক চায়নিজ রেস্টুরেন্টে আয়োজিত ইফতার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিতে গিয়েছিলেন নূর। তবে পুলিশ পাহারায় ভিপি নূর ওই অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করতে গেলে স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা রেস্টুরেন্টে তালা লাগিয়ে দেয় বলে অভিযোগ ওঠে।