• বৃহস্পতিবার, জুন ২৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৬ সকাল

সম্মোহনের মাধ্যমে সর্বস্ব লুট করতেন তারা

  • প্রকাশিত ০৪:১৫ বিকেল মে ২৭, ২০১৯
গ্রেফতার/আটক
প্রতীকী ছবি

উত্তরা থেকে ২ নারীসহ এই চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ

সম্মোহনের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের সর্বস্ব চুরির অভিযোগে ২ নারীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। রবিবার রাজধানীর উত্তরা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে প্রায় ১১ ভরি স্বর্ণ এবং নগদ আড়াই লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।   

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এই চক্রের সাথে জড়িতরা প্রথমে বন্ধুত্ব গড়ে তুলতো তাদের নজরে থাকা পরিবারের সদস্যদের সাথে। এর জন্য রাজধানীর অভিজাত এলাকার ওইসব পরিবারের আদ্যপান্ত জেনে নিতো তারা।

এরপর সুযোগ বুঝে একদিন এইসব বাড়িতে হানা দিতো এই চক্রের প্রধান তানিয়া। কখনও সে নিজেকে ওমান প্রবাসী ডাক্তার, কখনো যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী হিসেবে পরিচয় দিতো। তবে সব ক্ষেত্রেই বাড়ির যে মানুষটি ওই সময়ে উপস্থিত নেই তার বন্ধু হিসেবে পরিচয় দিতো তানিয়া। তারপর ওই পরিবার সম্পর্কে আগে থেকে পাওয়া বিভিন্ন তথ্য দিয়ে ওই পরিবারের বিশ্বাস অর্জন করে নিতো। তারপর সুযোগ বুঝে বাড়ির লোকদের সম্মোহিত করে তাদের সর্বস্ব চুরি করে নিতো তানিয়া।

পুলিশ আরও জানায়, এসব কাজে তানিয়াকে সাহায্য করতো তার বাসার গৃহকর্মী, চুরির কাজে সহায়তা করা উবার চালক এবং একটি স্বর্ণের দোকানের কর্মচারী। পুলিশ জানায়, সোনার দোকানের ওই কর্মচারী রায়হান স্বল্পমূল্যে তানিয়ার কাছ থেকে চুরি করা গহনা কিনতো। এই বিক্রির কাজটি করতো তানিয়ার বাসার গৃহকর্মী।

অভিযুক্ত তানিয়ার নামে বিভিন্ন থানায় ১৫টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। এ ধরণের ঘটনা এড়াতে হুট করে অপরিচিত কারো সাথে সম্পর্ক স্থাপন থেকে বিরত  থাকার পরামর্শ দিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।