• রবিবার, জুলাই ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৪৬ দুপুর

ট্রেনের টিকিট মিলছে স্টেশনের পাশের দোকানে

  • প্রকাশিত ০৭:৫২ রাত জুন ২, ২০১৯
পঞ্চগড় রেলওয়ে স্টেশন
পঞ্চগড় রেলওয়ে স্টেশনে টিকেট প্রত্যাশীদের ভিড়। ছবি: ইউএনবি

রেলওয়ে স্টেশন চত্বর ও এর আশপাশের বিভিন্ন দোকানে ট্রেনের এসি এবং নন এসি টিকেট নির্ধারিত মূল্যের ২ থেকে ৩ গুণ দামে বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা

পঞ্চগড়ে ট্রেনের টিকিট স্টেশনের পাশেই বিভিন্ন দোকানে চড়া মূল্যে বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া উঠেছে। এতে করে ন্যায্যমূল্যে ট্রেনের টিকেট পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেছেন টিকেট প্রত্যাশী যাত্রীরা। 

বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা জানান, রেলওয়ে স্টেশন চত্বর ও এর আশপাশের বিভিন্ন দোকানে এসি নন এসি টিকেট বিক্রি হচ্ছে। স্টেশন মাষ্টার, বুকিং ক্লার্ক, বুকিং মাস্টার, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী, রেলওয়ে পুলিশসহ রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে স্টেশনে স্থানীয় কালোবাজারিরা প্রকাশ্যে তিন গুণ দামে টিকেট বিক্রি করছেন বলেও অভিযোগ করেন তারা।

পঞ্চগড়ের বোদা বড়শশী এলাকার এক যাত্রী জানান, "কালোবাজারিদের ভাড়া করা লোক প্রতিদিন এসে রাতেই লাইনে দাঁড়ায়। তারা রাত থেকেই ভাড়া করা লোকদের লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখে। তাদের মাধ্যমে টিকিট কেটে পরে তিনগুণ বেশি মূল্যে বিক্রি করছে। রেলের অ্যাপসেও ঢোকা যাচ্ছে না। টিকিট এভাবে কালোবাজারিদের হাতে চলে গেলে সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে যাতায়াত করতে পারবে না"। 

আরেক যাত্রী মো. রোকনউদদ্দৌলা অভিযোগ করেন, "লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতেই এক কালোবাজারি ৩ হাজার টাকার বিনিময়ে এসির টিকিট দিতে চাইলেন। পরে স্টেশনে দীর্ঘক্ষণ ঘুরে টিকিট না পেয়ে অবশেষে তাদের কাছ থেকেই টিকিট নিতে হয়েছে"।

টিকিট কালোবাজারিদের হাতে চলে যাওয়ার বিষয়ে রেল বিভাগের স্থানীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জড়িত থাকার কথা জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন যাত্রী।

তবে পঞ্চগড় রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশনমাস্টার মো. মোশারফ হোসেন এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, "প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে আগাম টিকিট দেয়া হয়। যারা লাইনে থাকে তাদেরকেই টিকিট দেয়া হয়। তারা কালোবাজারি না অন্য কেউ এটা আমাদের দেখার বিষয় না।"

এ প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এহেতেশাম রেজা বলেন, "একটি চক্র নিজেদের লোকজনদের দিয়ে টিকিট কিনে তা বাড়তি দামে বিক্রি করছে বলে আমরাও অভিযোগ পেয়েছি। আমরা বিষয়টি খোঁজ খবর নিচ্ছি। তাদের শনাক্ত করতে পারলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।"