• রবিবার, জুন ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:২৬ রাত

কক্সবাজারে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ রোহিঙ্গাসহ নিহত ৫

  • প্রকাশিত ০৪:৪৬ বিকেল জুন ৭, ২০১৯
সড়ক দুর্ঘটনা
প্রতীকী ছবি।

ঈদ উপলক্ষে রোহিঙ্গারা পিকআপযোগে আনন্দ করে ঘোরাঘুরি করছিল। এ সময় পিকআপটি উল্টে যায়।

কক্সবাজারে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩ রোহিঙ্গাসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। ৭ জুন, শুক্রবার দুটি দুর্ঘটনায় এ পাঁচজনের মৃত্যু হয়। 

পুলিশ জানায়, শুক্রবার বেলা দেড়টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের নোয়াখালী এলাকায় একটি পিকাপ উল্টে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলেই ৩ রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়। ঘটনায় আহত হন আরো ১৫ জন। 

নিহতরা হলেন, বালুখালী ক্যাম্পের নুর মোহাম্মদ, মো. ইদ্রিস ও মো. জোবাইর।

টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, ঈদ উপলক্ষে রোহিঙ্গারা পিকআপযোগে আনন্দ করে ঘোরাঘুরি করছিল। এ সময় পিকআপটি উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান ৩ জন। আহত হয়েছে আরো ১৫ জন।

তিনি বলেন, “আহতদের টেকনাফ ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের মৃতদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে রয়েছে।”

অপরদিকে, শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মেধাকচ্ছপিয়া ঢালা নামক এলাকায় বাস ও মাইক্রোবাস মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোহাম্মদ আলমগীর।

নিহতরা হলেন, চকরিয়ার খুটাখালী ইউনিয়নের উত্তর ফুলছড়ি এলাকার খলিলুর রহমানের স্ত্রী রওশন আরা বেগম (৪৫) এবং ডুলাহাজারা ইউনিয়নের চা-বাগান এলাকার দীপক পালের ছেলে সনাক পাল (২৬)।

এসআই আলমগীর বলেন, “বেলা সাড়ে ১২টায় কক্সবাজারমুখী ইউনিক বাসের সঙ্গে চকরিয়াগামী মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে এক নারী নিহত হয়। ঘটনায় আহত হয় ৫ জন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে মালুমঘাট খ্রিশ্চিয়ান মেমোরিয়াল হাসপাতাল এবং চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। পরে সেখানে সনাক পাল নামের একজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ”

স্বজনদের বরাত দিয়ে এসআই বলেন, “চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথেই সনাক পালের মৃত্যু হয়েছে।”

নিহতদের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান আলমগীর।