• সোমবার, আগস্ট ২৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৬ রাত

পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাঙালি শ্রমিকদের সঙ্গে সংঘর্ষে চীনা নাগরিকের মৃত্যু

  • প্রকাশিত ০২:৪২ দুপুর জুন ১৯, ২০১৯
পায়রা
পটুয়াখালীর নিশানবাড়িয়ায় নির্মাণাধীন ১৩২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ছবি: সংগৃহীত

এক চীনা কর্মী সাবিন্দ্রকে লাথি দিয়ে নিচে ফেলে দিয়েছে, একথা বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ বাঙালি শ্রমিকেরা নিহত সাবিন্দ্র দাসের লাশ নিয়ে দফায় দফায় মিছিল করে। দিনভর চরম উত্তেজনার পর বিকেলে বাঙালি শ্রমিকদের সঙ্গে চীনাদের কয়েকদফা সংঘর্ষ হয়।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে চীনা নাগিরক ও বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে এক চীনা নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। 

১৯ জুন বুধবার সকালে বরিশালের শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই চীনা নাগরিকের মৃত্যু হয়। এর আগে ১৮ জুন, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার দিকে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। 

নিহত চীনা নাগরিকের নাম ঝাং ইয়াং ফাং (২৬) তিনি চীনের বাসিন্দা চাং এর ছেলে এবং তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রজেক্টে ইলেকট্রেশিয়ান পদে কর্মরত ছিলেন। এ ঘটনায় আহত অপর পাঁচ চীনা নাগরিককে প্রথমে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনা হয়েছে। 

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক চীনা কর্মী সাবিন্দ্রকে লাথি দিয়ে নিচে ফেলে দিয়েছে, একথা বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ বাঙালি শ্রমিকেরা নিহত সাবিন্দ্র দাসের লাশ নিয়ে দফায় দফায় মিছিল করে। দিনভর চরম উত্তেজনার পর বিকেলে বাঙালি শ্রমিকদের সঙ্গে চীনাদের কয়েকদফা সংঘর্ষ হয়। এ সময় ছয় চীনা নাগরিক ও আট বাঙালি শ্রমিক আহত হন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। 

এদিকে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. মাহাবুবুর রহমান জানান, পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হেমায়েত উদ্দিনের তত্বাবধায়নে আহত চীনা নাগরিকদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তাদের বয়স ছিল ২৬ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে।

চীনা নাগরিকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন বলেন, “মঙ্গলবার দিনগত মধ্যরাতে ছয় চীনা নাগরিক ও দুই বাংলাদেশি শ্রমিককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে মাথায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে ঝাং ইয়াং ফাং নামের এক চীনা নাগরিকের মৃত্য হয়েছে। বাকি পাঁচ চীনা নাগরিককে উন্নত চিকিৎসার জন্য বুধবার সকালে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।”

বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার রাম চন্দ্র দাস বলেন, “নিশানবাড়িয়ায় ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রে মঙ্গলবার এক দুর্ঘটনায় সাবিন্দ্র দাস (৩২) নামের এক বাংলাদেশি শ্রমিক ওপর থেকে পরে মারা যায়। এ নিয়ে শ্রমিকদের মধ্যে একটি অপ্রীতিকর ঘটনায় আহত ৬ জন চীনা নাগরিক ও ২ জন বাঙালি শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। এরমধ্যে বুধবার ভোররাতে ঝাং ইয়াং ফাং (২৬) নামে এক চীনা নাগরিককের মৃত্যু হয়েছে। তার মরদেহ বিনা ময়নাতদন্তে হস্তান্তরের জন্য আবেদন করা হয়েছে।”

কলাপাড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, “মঙ্গলবার সকালে বিদ্যুৎকেন্দ্রের বয়লারের উপর থেকে পড়ে ঘটনাস্থলেই নিহত সাবিন্দ্র দাস নামের এক শ্রমিক। নিহত সাবিন্দ্র দাসের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলায়। সাবিন্দ্র নবীগঞ্জ উপজেলার জয়নগর গ্রামের নগেন্দ্র দাসের ছেলে। শ্রমিক নিহতের ঘটনায় দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পাশাপাশি পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”