• শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫২ রাত

নদী পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের পথে প্রাণ হারালো বাবা-মেয়ে

  • প্রকাশিত ০৭:২৭ রাত জুন ২৬, ২০১৯
বাবা-মেয়ে
নিহত বাবা-মেয়ে। ছবি: এএফপি

নদী পাড়ি দেয়ার সময় রামিরেজ তার মেয়েকে নিরাপদে রাখতে টিশার্টের ভেতরে রেখে পিঠে বহন করছিল। কিন্তু ভয়াবহ ঢেউয়ের মুখে শিশুটির মায়ের সামনেই তারা তলিয়ে যায়।

মধ্য আমেরিকার দেশ এল সালভাদরের এক নাগরিক তার ২ বছরের মেয়ে নিয়ে মেক্সিকোর রিও গ্রান্দে নদী পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের পথে ডুবে মারা গেছে। তাদের ভেসে থাকা মৃতদেহের ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ায় অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিপজ্জনক পরিস্থিতি নিয়ে আবারও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। 

মেক্সিকোর আদালতের  বরাত দিয়ে এএফপি জানায়, ২৫ বছরের অস্কার মার্টিনেজ রামিরেজ তার ২১ বছর বয়সী স্ত্রী ও ২ বছরের মেয়ে নিয়ে এল সালভাদর থেকে মেক্সিকো এসে নদী পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। 

নদী পাড়ি দেয়ার সময় রামিরেজ তার মেয়েকে নিরাপদে রাখতে টিশার্টের ভেতরে রেখে পিঠে বহন করছিল। কিন্তু ভয়াবহ ঢেউয়ের মুখে শিশুটির মায়ের সামনেই তারা তলিয়ে যায়। শিশুটির মা অবশ্য বেঁচে যায় এবং তীরে পৌঁছাতে সক্ষম হয়।

গত সোমবার (২৪ জুন) মেক্সিকোর টামাউলিপাস অঙ্গরাজ্যের মাতামোরসে বাবা-মেয়ের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। 

পানিতে ভেসে থাকা মৃত বাবা-মেয়ের ছবি মেক্সিকো ও এল সালভাদরে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। অভিবাসীদের ব্যাপারে সরকারের ভূমিকা নিয়ে চলছে সমালোচনা।

মেক্সিকোর নিরাপত্তা বাহিনী দ্বারা দুজন নারী ও একটি মেয়ে শিশুকে জোরপূর্বক আটক করার একটি ছবি গত সপ্তাহে প্রকাশিত হওয়ার পর দেশটির বামপন্থী প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ সমালোচিত হয়েছিলেন। গত ডিসেম্বরে দায়িত্ব নেয়ার সময় অভিবাসীদের সুরক্ষার কথা বলেছিলেন।

মঙ্গলবার তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তে তার সরকারের ১৫ হাজার বাহিনী নিয়োজিত আছে যাদেরকে অভিবাসীদের থামানোর আদেশ দেওয়া হয় নি। ওই নারীদের আটকের বিষয়টিও তদন্ত করা হবে বলে তিনি কথা দেন।

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী, নথীভুক্ত নয় এমন অভিবাসীরা আশ্রয়ের জন্য সীমান্ত অতিক্রম করার অধিকার পায়। মেক্সিকো সাধারণত এর উত্তর সীমান্তে এরকম আশ্রয়প্রার্থীদের সীমান্ত অতিক্রমে বাঁধা দেয় না।

তবে মেক্সিকোর সরকার এক্ষেত্রে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছ থেকে চাপের সম্মুখীন হচ্ছে। ট্রাম্প হুমকি দিয়েছেন যদি মেক্সিকো থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী প্রবেস বন্ধ না করা হয় তাহলে দেশটির পণ্যে শুল্ক আরোপ করবে যুক্তরাষ্ট্র। 

গত ৭ জুন দেশ দুটি একটি চুক্তি করে যেখানে মেক্সিকোর সীমান্তে ৬ হাজার জাতীয় নিরাপত্তাবাহিনী পুনরায় নিয়োগ করার কথা বলা হয়। এক্ষেত্রে মেক্সিকোকে ৪৫ দিন সময় দিয়েছে ওয়াশিংটন।