• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:১৩ রাত

বান্দরবানের সাথে সারাদেশের যোগাযোগ বন্ধ

  • প্রকাশিত ১২:১৩ দুপুর জুলাই ৯, ২০১৯
সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন
মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের চট্টগ্রাম-বান্দরবান সড়কপথের বিভিন্ন এলাকায় পাহাড়ি ঢলের পানি এসে পড়ায় বান্দরবানের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ঢাকা ট্রিবিউন

সাঙ্গু নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে থানচি উপজেলার বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় ৩০ জনের অধিক পর্যটক আটকা পড়েছে

টানা পাঁচদিনের অব্যাহত বর্ষণে বান্দরবানের সাথে সারাদেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) সকাল সাড়ে নয়টার দিকে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার বাজালিয়া ইউনিয়নের চট্টগ্রাম-বান্দরবান সড়কপথের বডদুয়ারাসহ বিভিন্ন এলাকায় পাহাড়ি ঢলের পানিতে প্লাবিত হওয়ায় বান্দরবানের সাথে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল থেকে সড়কের উভয় দিকে যানবাহন আটকা পড়ায় চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে শত শত যাত্রীর।

এদিকে জেলার সাঙ্গু নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে থানচি উপজেলার জিন্না পাড়াসহ বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় ৩০ জনের অধিক পর্যটক আটকা পড়েছে। নৌ ও পাহাড়ি পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার কারণে রুমা ও থানচি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলাগুলোর বিভিন্ন পর্যটন স্পটে পর্যটক যাতায়াত বন্ধ করা হয়েছে। 

সোমবার সকালে চিম্বুক এলাকায় সড়কের ওপর পাহাড় ধসে পড়ায় বান্দরবানের সাথে  রুমা ও থানচি উপজেলার সড়কের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হলেও বিকালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে ওঠে ।

বান্দরবান বাস মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক ঝুন্টু দাশ বলেন, “বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কে পানি বৃদ্ধির কারণে আমরা আমাদের বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি।”

প্রসঙ্গত, টানা বর্ষণের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের আশ্রয়ের জন্য বান্দরবানের ৭টি উপজেলায় ১২৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে, তাদের জন্য পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।