• শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:৫২ রাত

না ফেরার দেশে ৪৪ বছর ধরে রোজা রাখা সেই মা

  • প্রকাশিত ১০:১৮ রাত জুলাই ৯, ২০১৯
ঝিনাইদহ
ছেলে শহিদুলের সাথে মা ভেজিরন নেছা। ছবি: সংগৃহীত

ভেজিরন নেছার বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম ১২ বছর বয়সে হারিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে না পেয়ে ঘটনার দেড় মাস পর ভেজিরন নেছা গ্রামের মসজিদ ছুঁয়ে প্রতিজ্ঞা করেন যে, ছেলে ফিরে এলে তিনি যত দিন বেঁচে থাকবেন তত দিন রোজা রাখবেন।

হারানো ছেলেকে ফিরে পেয়ে প্রতিজ্ঞা পূরণে দীর্ঘ ৪৪ বছর ধরে রোজা রাখা ঝিনাইদহের ভেজিরন নেছা মারা গেছেন।

৮ জুলাই, সোমবার বিকালে বার্ধক্যজনিত কারণে সদর উপজেলার বাজার গোপালপুরে নিজ বাড়িতে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

পরিবারের সদস্যরা জানান, ভেজিরন নেছার বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম ১২ বছর বয়সে হারিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে না পেয়ে ঘটনার দেড় মাস পর ভেজিরন নেছা গ্রামের মসজিদ ছুঁয়ে প্রতিজ্ঞা করেন যে, ছেলে ফিরে এলে তিনি যত দিন বেঁচে থাকবেন তত দিন রোজা রাখবেন। ওই দিনই ছেলের সন্ধান পান তিনি।

এরপর থেকে ভেজিরন নেছা রোজা রাখা শুরু করেন এবং ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী বছরে কয়েকটি দিন বাদে প্রায় ৪৪ বছর ধরে রোজা রেখে গেছেন।

শহিদুল ইসলাম বলেন, “মা আমার জন্য এত কষ্ট করেছেন। তিনি আজ আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন।” মায়ের জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন তিনি।

বাজার গোপালপুর গ্রামের বাসিন্দা মঞ্জুর ঢালী বলেন, “আমার বুদ্ধি হওয়ার পর থেকেই দেখছি ভেজিরন নেছা রোজা রাখছেন। অভাব অনটনের মধ্যে পরের বাড়িতে কাজকর্ম করে সন্তানদের বড় করেছেন।”