• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৪ রাত

ছোট্ট আব্দুল্লাহর হার্টে তিনটি ছিদ্র, টাকার অভাবে হচ্ছে না চিকিৎসা

  • প্রকাশিত ০৩:০৪ বিকেল জুলাই ১১, ২০১৯
টাঙ্গাইল
হৃদরোগে আক্রান্ত আব্দুল্লাহ। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

‘গত দুই বছর ধরে শিশু পুত্রের হার্টের চিকিৎসা করাতে গিয়ে দোকান ও বাড়ির জমি বিক্রি করতে হয়েছে। এ ছাড়া আত্মীয় স্বজনের কাজ থেকে ধার-দেনা করে সর্বহারা হয়েছি। এখন হয়তো টাকার অভাবে আর চিকিৎসা করা সম্ভব হবে না।’



টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে আড়াই বছরের শিশু আব্দুল্লাহ হার্টে তিনটি ছিদ্র নিয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে। জন্মের ৬ মাসের মাথায় কুমুদিনী হাসপাতালে রোগটি শনাক্ত হলে একমাত্র শিশু পুত্রকে বাচাঁতে ঢাকা শিশু হাসপাতাল,ফজিলাতুননেছা, খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ একাধিক হাসপাতালে চিকিৎসা করান তার বাবা কাবেল শিকদার। 

কিন্ত প্রায় সব হাসপাতালের চিকিৎসকগণ আব্দুল্লাহকে ভারতে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। এ জন্য কাবেল শিকদার প্রাথমিকভাবে সাড়ে ৫ লাখ টাকা খরচ হবে বলেও জানান চিকিৎসকেরা।  

পরবর্তী সময়ে আব্দুল্লাহর বাবা কাবেল শিকদার তার ক্ষুদ্র মুদি দোকান ও বাড়ির ৪ শতাংশ জমির ২ শতাংশ বিক্রি করেন এবং গত জুন মাসে ভারতের চেন্নাইয়ে নারান হাসপাতালে নিয়ে ছেলের হার্টের অপারেশন করান। চিকিৎসকেরা কয়েক সপ্তাহ পর আবারও আব্দুল্লাহকে ভারত নিয়ে যেতে বলেছেন। কিন্তু শিশু আব্দুল্লাহর দরিদ্র পিতা-মাতার পক্ষে এখন আর ছেলের চিকিৎসা ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না। 

শিশু আব্দুল্লাহ টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার মহেড়া ইউনিয়নের ছাওয়ালী গ্রামের কাবেল সিকদার ও হেলেনা বেগমের ছেলে।  

আব্দুল্লাহর বাবা কাবেল সিকদার বলেন, স্ত্রী ও ১০ বছরের মেয়ে এবং শিশুপুত্র আব্দুল্লাহকে নিয়ে সুখেই কাটছিল আমাদের। কিন্তু গত দুই বছর ধরে শিশু পুত্রের হার্টের চিকিৎসা করাতে গিয়ে দোকান ও বাড়ির জমি বিক্রি করতে হয়েছে। এ ছাড়া আত্মীয় স্বজনের কাজ থেকে ধার-দেনা করে সর্বহারা হয়েছি। এখন হয়তো টাকার অভাবে আর চিকিৎসা করা সম্ভব হবে না।

এমতাবস্থায় তিনি শিশুপুত্র আব্দুল্লাহর উন্নত চিকিৎসার জন্য সমাজের সকল হৃদয়বান ও দানশীল ব্যক্তির আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন তার অসহায় মা-বাবা। 

চিকিৎসায় সহযোগিতা দিতে সরাসরি যোগাযোগ করুন শিশু আব্দুল্লাহর মা হেলেনা বেগমের এই মোবাইল নম্বরে- ০১৭৫৯৬৩৯৯৮১।