• বুধবার, আগস্ট ২১, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৩ রাত

বাড্ডায় পিটিয়ে নারী হত্যার মূল আসামি গ্রেপ্তার

  • প্রকাশিত ০৯:৫৮ রাত জুলাই ২৩, ২০১৯
বাড্ডা হত্যা
বাড্ডায় রেনু হত্যা মামলার মূল অভিযুক্ত হৃদয় মাহমুদ হোসাইন অপু/ঢাকা ট্রিবিউন

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হৃদয় তাসলিমা বেগম রেণুকে পেটানোর কথা স্বীকার করেছে

রাজধানীর বাড্ডায় গণপিটুনিতে তাসলিমা বেগম রেণুকে হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয়কে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের ভুলতা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঢাকা মহানগর গোয়ন্দা (ডিবি) পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম এইতথ্য নিশ্চিত করেন। খবর বাংলা ট্রিবিউনের।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হৃদয় ওই নারীকে পেটানোর কথা স্বীকার করেছে।

হৃদয়ের বরাত দিয়ে মাহবুব আলম জানান, "হৃদয় পেশায় একজন সবজি বিক্রেতা। উত্তর বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনেই সে সবজি বিক্রি করতো। সেদিন রেণুকে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের রুম থেকে ছেলেধরা সন্দেহে টেনে-হিঁচড়ে বের করে উৎসুক জনতা। এরপর স্কুলেরই একটি রুমে আটকে রাখে তাকে। একপর্যায়ে উত্তেজিত জনতা ওই রুমের তালা ভেঙে তাকে বের করার পর প্রথমে পেটানো শুরু করে হৃদয়।"  

এদিকে মঙ্গলবার বিকেলে গুলিস্তানে গোলাপ শাহ মাজারের সামনে থেকে হৃদয় সন্দেহে আরো এক যুবককে আটক করে গুলিস্তান পুলিশ ফাঁড়িতে সোপর্দ করেন কয়েকজন।

শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আরিফুর রহমান সরদার জানান, “লোকজন একটি ছেলেকে বাড্ডার হৃদয় সন্দেহে ধরে এবং পুলিশের কাছে তুলে দেয়। তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তার পরিবারের সদস্যদের খবর দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে বাড্ডা থানাকেও অবহিত করা হয়েছে। বাড্ডা থানা অনুসন্ধান করে দেখবে, এই ছেলে আসামি হৃদয় কিনা।”

পরবর্তীতে বাড্ডা থানা পুলিশ ওই যুবকের পরিচয় নিশ্চিত হতে পেরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (২০ জুলাই) সকালে রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে তাসলিমা বেগম রেণুকে পিটিয়ে হত্যা করে বিক্ষুব্ধ জনতা। ওইদিন সকাল পৌনে ৯টার দিকে উত্তর বাড্ডা কাঁচাবাজারের সড়কে ঘটনাটি ঘটে। এঘটনায় ৪শ’-৫শ’ জনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়েছে। ওই মামলার প্রধান আসামি হৃদয়।