• মঙ্গলবার, আগস্ট ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৩ দুপুর

নাটোরে ঘুমন্ত স্কুল শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

  • প্রকাশিত ১০:০৫ সকাল জুলাই ২৪, ২০১৯
নাটোর

বাড়ির পাশে পুকুরে তার ভাসমান মরদেহ পাওয়া যায়

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় রাতের বেলায় ঘরে ঢুকে ঘুমন্ত এক স্কুল শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর মরদেহ পুকুরে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) রাতে এঘটনা ঘটে।

বিবাহ-বিচ্ছেদের পর মায়ের বাড়িতে থাকতেন লতিফা হেলেন ওরফে মঞ্জুয়ারা নামে ওই শিক্ষিকা। তবে ঘটনার সময় একাই বাড়িতে ছিলেন তিনি। তিনি ব্কাশো প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এবং নাজিরপুর ইউনিয়নের গোপিনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। কারণ উদঘাটন কিংবা ঘটনায় সম্পৃক্ত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

গুরুদাসপুর থানার ওসি মোজাহারুল ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি মোজাহারুল ইসলাম জানান, ব্কাশো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিক লতিফা হেলেন বিবাহ-বিচ্ছেদের পর মায়ের বাড়িতেই থাকতেন। তবে তার একমাত্র সন্তান বাবার সঙ্গেই থাকে।

স্থানীয় সূত্র জানায়,  সন্ধ্যার দিকে ওই শিক্ষিকার মা পাশের গ্রামে তার মামাবাড়িতে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলতে যান। এসময় হেলেন বাড়িতে একাই ছিলেন।

রাত ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে হেলেনের মা বাড়িতে ফিরে ঘরের দরজা খোলা এবং মেয়েকে বাড়িতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। একপর্যায়ে বাড়ির পাশে পুকুরে হেলেনের ভাসমান মরদেহ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসি মোজাহারুল ইসলাম জানান, বাড়িতে একা পেয়ে দুর্বৃত্তরা হেলেনের ঘরে প্রবেশ করে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে হত্যা করে পাশের পুকুরের ফেলে পালিয়ে যায়। নিহতের মাথায় ছুরিকাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। কিন্তু মরদেহ ধুয়ে যাওয়ায় অন্য কোনো আলামত পাওয়া যায়নি।

মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। খুব দ্রুত এই হত্যা রহস্য উদঘাটন হবে বলে জানান ওসি।