• সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৪ রাত

মেয়র আতিকুল: বাসা-বাড়িতেও পরিচালিত হবে ভ্রাম্যমাণ আদালত

  • প্রকাশিত ০৫:২৬ সন্ধ্যা আগস্ট ২, ২০১৯
মেয়র আতিকুল ইসলাম
ডিএনসিসি'র মেয়র আতিকুল ইসলাম। ফাইল ছবি

মেয়র বলেন, আমাদের আন্তরিকতার কোনো কমতি নেই, তবে এখন থেকে বছরে ৩৬৫ দিনই এডিস মশা নিয়ে কাজ করতে হবে

নগরবাসীকে ডেঙ্গু থেকে রেহাই দিতে বাসা-বাড়িতেও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন,"নগরবাসীকে ডেঙ্গু থেকে রেহাই দিতে এবার বাসা-বাড়িতেও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। এডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

শুক্রবার (২ আগস্ট) সকালে রাজধানীর উত্তরায় হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ডিএনসিসি এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে ওয়ার্ডভিত্তিক বাসা-বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে এডিস মশানিধন ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র এসব কথা বলন।

মেয়র বলেন, এডিস মশা নির্মূলে প্রতিটি ওয়ার্ডকে ১০টি ভাগে ভাগ করে ৫৪টি ওয়ার্ডে আগামী সোমবার থেকে ডিএনসিসি এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়একযোগে কাজ শুরু করবে। এ কর্মযজ্ঞে প্রচুর স্বেচ্ছাসেবী দরকার হবে। যুব উন্নয়ন অধিদফতরের ৬০০ যুব ডিএনসিসিতে কাজ করবে।প্রতিদিন প্রতিটি ওয়ার্ডে ডিএনসিসির ওয়ার্ড কমিটি ও আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে স্কাউটস, সাধারণ ছাত্র-ছাত্রী, এলাকাবাসী এবং যুব সংগঠনসমূহকে তিনি একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।

তিনি সকল সাংবাদিককে বিভিন্ন এলাকার অপরিচ্ছন্নতার পূর্ণ তথ্য দিয়ে ডিএনসিসিকে সহায়তা করার জন্য অনুরোধ জানান। 

ডিএনসিসির সকল মশক সুপারভাইজার ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ফোন নাম্বার আজ তিনটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। মেয়র সেগুলো সকলকে সংগ্রহ করতে অনুরোধ করেন এবং শীঘ্রই অন্যান্য জাতীয় দৈনিকগুলোতেও এই তথ্যগুলো প্রচার করা হবে বলে জানান। সকল মশককর্মীদেরকে জিপিএস ট্র্যাকারের মাধ্যমে মনিটর করা হবে বলে তিনি জানান।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ডিএনসিসি এখন থেকে নিজেই মশার ঔষধ ক্রয় করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে ঔষধের মান সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহ নিশ্চিত করবে।

 তিনি বলেন দুই-একদিনের মধ্যে নতুন ঔষধের নমুনা এসে পৌঁছাবে। নমুনা পরীক্ষা করার পরে যত দ্রুত সম্ভব ঔষধ ক্রয় করা হবে। শুধু ভারত নয়, আমরা যে কোনো দেশ থেকে বিশেষজ্ঞ পরামর্শ নিতে প্রস্তুত। 

মেয়র বলেন, আমাদের আন্তরিকতার কোনো কমতি নেই, তবে এখন থেকে বছরে ৩৬৫ দিনই এডিস মশা নিয়ে কাজ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাই, যুব উন্নয়ন অধিদফতরের মহাপরিচালক ফারুক আহমেদ, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফছার উদ্দিন খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।