• সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৪ রাত

অর্থমন্ত্রী: বঙ্গবন্ধুর মতো মানুষের মৃত্যু নেই

  • প্রকাশিত ০৫:৫৬ সন্ধ্যা আগস্ট ১৫, ২০১৯
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল
বৃহস্পতিবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ঢাকা ট্রিবিউন

'আজ বঙ্গবন্ধুর সেই অসমাপ্ত কাজ তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করে যাচ্ছেন'

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, "জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো মানুষ পৃথিবীতে একবারই জন্ম নেন। বঙ্গবন্ধুর মতো মানুষের মৃত্যু নেই। যুগ যুগ ধরে বাংলাদের মানুষের মাঝে তিনি বেঁচে আছেন এবং থাকবেন। তিনিই আমাদের সকল অনুপ্রেরণার উৎস।"

বৃহস্পতিবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মুস্তফা কামাল বলেন, "জাতির পিতা স্বপ্ন দেখেছিলেন এই দেশের মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তি দেবেন এবং বাংলাদেশকে পৃথিবীর মানচিত্রে অনেক উচ্চতায় নিয়ে যাবেন।আজ বঙ্গবন্ধুর সেই অসমাপ্ত কাজ তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করে যাচ্ছেন। তিনি আমাদেরকে সব সময় অনুপ্রাণিত করেন আরও সুন্দর করে পরিকল্পনা করার জন্য যেন এদেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি মেলে।". 

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশে অর্থমন্ত্রী বলেন, "বাংলাদেশ একটি স্বপ্নের দেশ। অনেক রক্ত দিয়ে এই দেশের স্বাধীনতা পেয়েছি। তোমরা সব সময় বিশ্বাস করবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের মাঝে ছিলেন ও সারাজীবন থাকবে। যারাই এই বিশ্বাসটি পালন করবে, তারাই সফল হবে। তরুণরা আছে বলেই, আমরা এখনও বেঁচে আছি। আমি কুমিল্লার ধূতিয়াপুরের মুস্তফা কামাল টিউশনি করে দেশের অর্থমন্ত্রী হতে পারলে, তোমরা তরুণরা কেন পারবে না? তোমাদের লক্ষ্য থাকতে হবে, বড় মানুষ হওয়ার জন্য।"

সভায় এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক রেলমন্ত্রী ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক মুজিব এমপি, সাবেক আইনমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল মতিন খসরু, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন চৌধুরীসহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।