• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৪:০০ বিকেল

শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিকদের বিরুদ্ধে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ, আটক ৫

  • প্রকাশিত ১১:৩১ সকাল আগস্ট ২৬, ২০১৯
গণপিটুনি
প্রতীকী ছবি।

রবিবার রাতে উপজেলার ফুলছড়া চা বাগানের নাটমন্দিরের সামনে মনির হোসেনের সঙ্গে কথা কাটা-কাটি হয় ওই বাগানের চা শ্রমিকদের। এঘটনার জের ধরে চা শ্রমিকরা মনিরকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ফিনলে টি কোম্পানির ফুলছড়া চা বাগানে মনির হোসেন (২২) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে চা শ্রমিকরা। এসময় চা শ্রমিকদের হামলায় আহত হয়েছেন জহির মিয়া নামে আরেক যুবক। এঘটনায় পুলিশ ৫জনকে আটক করেছে।

রবিবার (২৫ আগস্ট) রাতে উপজেলার কালিঘাট ইউনিয়নের ফুলছড়া চা বাগান এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। নিহত মনির হোসেন শহরতলীর মুসলিমবাগ এলাকার আকিল মিয়ার ছেলে। সে শ্রীমঙ্গল পৌর শহরের মিদাদ শপিংয়ের একজন ব্যবসায়ী।

এদিকে, হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে মুসলিমবাগ এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়। রাত ১২টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত করতে গেলে পুলিশ সদস্য সমর বিকাশ চাকমা ও শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য আজয় সিংহ ও আমজাদ হোসেন বাচ্চু আহত হন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাতে উপজেলার ফুলছড়া চা বাগানের নাটমন্দিরের সামনে মনির হোসেনের সঙ্গে কথা কাটা-কাটি হয় ওই বাগানের চা শ্রমিকদের। এঘটনার জের ধরে চা শ্রমিকরা মনিরকে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। পরে স্থানীয়রা মনিরকে নিয়ে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে রওনা হলে পথেই তার মৃত্যু হয়। এসময় মনিরের সঙ্গে থাকা একই এলাকার নাজমুল হোসেনর ছেলে আহত জহির মিয়াকেও আশঙ্কাজনক অবস্থায় মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পুলিশ ৫জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলেন- ওই এলাকার সঞ্জীব, জাহাঙ্গীর, চন্দন, পল্পব নায়েক ও উত্তম তন্তবায়।

শ্রীমঙ্গল থানার ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা সোমবার সকালে ট্রিবিউনকে বলেন, উত্তেজিত এলাকাবাসীকে শান্ত করতে পুলিশ হিমশিম খেতে হয়েছে। আহত পুলিশ সদস্য ও ব্যবসায়ীকে চিকিৎসার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এপর্যন্ত ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।