• রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০১ দুপুর

মাত্র ৫ হাজার টাকায় হৃদযন্ত্রের অস্ত্রোপচার!

  • প্রকাশিত ১২:৩২ দুপুর আগস্ট ২৬, ২০১৯
অস্ত্রোপচার
প্রতীকী ছবি

প্রথমবারের মতো জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসকরা বুক কিংবা পাঁজরের হাড় না কেটেই হৃদযন্ত্রের অস্ত্রোপচার করতে সক্ষম হয়েছেন

প্রথমবারের মতো দেশের কোনো সরকারি হাসপাতালে বুক কিংবা পাঁজরের হাড় না কেটেই হৃদযন্ত্রের অস্ত্রোপচার করতে সক্ষম হয়েছেন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের (এনআইসিভিডি) চিকিৎসকরা। 

সোমবার (২৬ আগস্ট) সকালে এনআইসিভিডিতে নুপুর (১২) নামের এক কিশোরী রোগীর শরীরে প্রায় ৩ ঘণ্টা সময় ধরে এই অস্ত্রোপচার চালানো হয়।

ডা. আশরাফুল হক সিয়ামের নেতৃত্বে ১০ জন ডাক্তারের একটি টিম এই অপারেশন পরিচালনা করেন। ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্ডিয়াক সার্জন অধ্যাপক ডা. ফারুক আহমেদ ও ডা. প্রশান্ত কুমার চন্দও এসময় উপস্থিত ছিলেন।

অস্ত্রোপচার প্রসঙ্গে ডা. সিয়াম বলেন, "ডাক্তারি ভাষায় এই ধরণের অস্ত্রোপচারকে মিনিমাল ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারি বলা হয়ে থাকে। মিনিমাল ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারির ক্ষেত্রে ওপেন হার্ট সার্জারির বিকল্প হিসেবে বুকে একটি ছোট ছিদ্র করে অপারেশন করা হয়। এতে বুকের হাঁড় কাটতে হয় না। চিকিৎসকরা পাঁজরের মাঝখানে ছিদ্র করে কাজ করেন। এতে ব্যথা কম হয় এবং রোগী দ্রুত সেরে ওঠে। ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন দেশে প্রথম এধরনের সার্জারি সম্পন্ন করে। তবে, দেশের কোনও বেসরকারি হাসপাতালে এখনও পর্যন্ত এই পদ্ধতিতে অস্ত্রোপচার করা হয়নি। সরকারি হাসপাতালে এই ধরণের অস্ত্রোপচার এই প্রথম।"

রোগীর বর্তমান শারীরিক অবস্থা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, "নুপুরের অবস্থা এখন স্থিতিশীল। দুই-তিনদিন পর্যবেক্ষণের পর আমরা তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেবো।"

"এখন থেকে হাসপাতাল নিয়মিত এ ধরনের সার্জারি করবে এবং অন্য সার্জনদের প্রশিক্ষণ দেবে। কেননা হাসপাতালে এখন এ সার্জারির জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম রয়েছে", যোগ করেন ডা. আশরাফুল হক সিয়াম। এসময় তিনি প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম আমদানির জন্য বিশেষ বাজেট বরাদ্দ দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

প্রসঙ্গত, ওপেন হার্ট সার্জারির বিকল্প এই অস্ত্রোপচারে খরচ পড়েছে মাত্র ৫ হাজার টাকা।