• শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৪৬ রাত

চুরি, মাদক নিয়ে বিরোধে খুলনায় ট্রাক হেলপার খুন

  • প্রকাশিত ০৬:২৩ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ২, ২০১৯
শিশু মৃত্যু
প্রতীকী ছবি।

এর আগে, ওই তরুণকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ভৈরব নদের সিএসডি সংলগ্ন নির্জন এলাকায় ধারাল অস্ত্র দিয়ে গলা কেটে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়

খুলনার দৌলতপুর বিএল কলেজের পেছনে ভৈরব নদী থেকে ৩১ আগস্ট উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে। ওই যুবক দৌলতপুর থানাধীন মীরেরডাঙ্গা সেনপাড়ার আবু সুফিয়ান কলোনীর মোস্তফা ফরাজীর পুত্র, ট্রাক হেলপার জনি ফরাজী (১৮)।

মোবাইল ফোন চুরি ও মাদকসংক্রান্ত বিরোধের জেরে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। গত ২৯ আগস্ট রাতে বাসা থেকে নিখোঁজ হয়। এঘটনায় লিমন (১৮) নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এর আগে, বিএল কলেজ সংলগ্ন তরফদার ঘাট থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে উদ্ধারের পর লাশ গোয়ালখালী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মোস্তাক আহম্মেদ জানান, পুলিশ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ওই তরুণের পরিচয় জানতে পারে। পরে নিহতের পরিবার নিশ্চিত হয়ে গোয়ালখালি কবরস্থান থেকে রোববার দুপুরে লাশ উঠিয়ে নিয়ে আসে।

নিহতের বড় ভাই রনি ফরাজী জানান, “আমার ভাইকে ২৯ আগস্ট রাত ৮টায় বাসা থেকে এলাকার রেখার পুত্র লিমন (১৮) ডেকে নিয়ে যায়। এরপর থেকে সে নিখোঁজ হয়। পুলিশের মাধ্যমে জানতে পারি নদীতে একটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশের দেওয়া তথ্য ও পরনের কাপড় দেখে আমরা নিশ্চিত হয়ে গোয়ালখালি কবরস্থান থেকে ভাইয়ের লাশ তুলে আনি। ওকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ভৈরব নদের সিএসডি সংলগ্ন নির্জন এলাকায় ধারাল অস্ত্র দিয়ে গলা কেটে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়।