• শুক্রবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৪৬ বিকেল

সারাদেশে নিষিদ্ধ করা হলো দুই এনজিও

  • প্রকাশিত ০৫:৫৮ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯
আদ্রা মারকাজুল লোগো
ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এনজিও ব্যুরোর এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়

আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) ‘আদ্রা’ এবং দেশীয় সংস্থা ‘আল মারকাজুল ইসলামী’কে সারাদেশে নিষিদ্ধ করেছে এনজিও ব্যুরো। গত ২৫ আগস্ট কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশে আর্থিক সহায়তা এবং প্রত্যাবাসনবিরোধী প্রচারণার দায়ে তাদেরকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। 

একইসঙ্গে এনজিও দুইটির সঙ্গে ব্যাংকের সব ধরনের লেনদেন বন্ধ রাখার জন্যও বলা হয়েছে। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এনজিও ব্যুরোর এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২২ আগস্ট দ্বিতীয় দফা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ ভেস্তে যাওয়ার জন্য প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহল থেকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে কর্মরত কয়েকটি এনজিওর অপতৎপরতাকে দায়ী করা হয়। এছাড়া প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া গত ২৫ আগস্ট বিশাল সমাবেশের আয়োজন করে রোহিঙ্গারা।

জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ বিষয়ে একটি তদন্তে নামে জেলা প্রশাসন। এতে রোহিঙ্গাদের মাঝে প্রত্যাবাসনবিরোধী উস্কানির ইন্ধন এবং সমাবেশ আয়োজনের গোপন সহায়তার জন্য কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার অপতৎপরতার বিষয়টি উঠে আসে। পরবর্তীতে তদন্ত প্রতিবেদন এনজিও ব্যুরোর সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়।

দুইটি এনজিওর কার্যক্রম নিষিদ্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশরাফুল আফসার ঢাকা ট্রিবিউনকে জানিয়েছেন, ‘‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত আন্তর্জাতিক এনজিও ‘আদ্রা’ এবং দেশীয় সংস্থা ‘আল-মারকাজুল ইসলামী’র বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের আর্থিক সহায়তা ও মহাসমাবেশে টিশার্ট সরবরাহের অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে শুধু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নয়, সারাদেশেই তাদের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে এই দুইটি এনজিও’র সব ধরনের ব্যাংক লেনদেন বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে।’’

উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসার দুই বছর পূর্তি উপলক্ষে উখিয়ার কুতুপালং পালংয়ের মধুরছড়া মাঠে জনসমাবেশ করে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। এসময় তাদের পরনে সাদা টিশার্ট দেখা যায়। বিপুল সংখ্যক মানুষের এই সমাবেশে টিশার্ট সরবরাহের অভিযোগ উঠেছে উল্লেখিত সংস্থা দুইটির বিরুদ্ধে।