• সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৪ রাত

মার্কিন রাষ্ট্রদূত: অরক্ষিত ও ত্রুটিপূর্ণ পৃথিবীর ভবিষ্যৎ তরুণদের হাতে

  • প্রকাশিত ০৭:০৭ রাত সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯
মিলার
বুধবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. জোবাইদা নাসরীনের লেখা ‘লিঙ্গ বৈচিত্রের বয়ান’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার সৌজন্য

তরুণরাই পৃথিবীর ভবিষ্যৎ, তারাই ভবিষ্যৎ নেতা। প্রকৃতপক্ষে এখনই তারা বিশ্বের আসল নেতা’

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বলেছেন, “এই অরক্ষিত ও ত্রুটিপূর্ণ পৃথিবীর ভবিষ্যৎ তরুণদের হাতেই নিহিত। তরুণরাই পৃথিবীর ভবিষ্যৎ, তারাই ভবিষ্যৎ নেতা। প্রকৃতপক্ষে এখনই তারা বিশ্বের আসল নেতা।”

তরুণদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, “সামনে পা বাড়ানো এবং সাহসী হওয়ার সময় এখনই। তোমাদের অভিপ্রায়, নীতি ও মূল্যবোধ ব্যক্ত করতে আদর্শ অনুসরণ করো যেন লোকেরা তা বুঝতে পারে।”

বুধবার (০৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. জোবাইদা নাসরীনের লেখা ‘লিঙ্গ বৈচিত্রের বয়ান’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে উপস্থিত তরুণদের উদ্দেশে এসব কথা বলেন তিনি। এসময় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের প্রতি তরুণ সমাজকে এগিয়ে এসে সাহসী পদক্ষেপ নেওয়ারও আহ্বান জানান মিলার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবনের মোজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে নৃবিজ্ঞান বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মিলার বলেন, “বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশে এমনকি আমার নিজের দেশেও তৃতীয় লিঙ্গের লোকেরা এবং তাদের সমর্থকরা অনবরত সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। বিভিন্ন দেশে তারা অবিরত জাতিগত সহিংসতার স্বীকার হচ্ছেন।”

তিনি বলেন, “ভাঙন ও মতানৈক্যের করাল গ্রাস যেসব লোক দেখতে আমাদের মতো নয়, যারা আমাদের মতো কথা বলে না কিংবা উপাসনা করে না তাদের আমাদের থেকে দুঃখজনকভাবে বিভক্ত করে। আমাদেরকে যদি আবার যুদ্ধে ফিরে যেতে হয়, তাহলে এর ক্ষয়ক্ষতির গভীরতা কতটুকু হবে তা কেউ বর্ণনা করতে পারবে না।”

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ বলেন, “আমাদের সমাজে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের আপন করে নেওয়া হয় না। কিন্তু তাদেরও আমাদের মতো সকল সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার অধিকার রয়েছে। তাদের এসকল সুযোগ-সুবিধা দেওয়া তাদের প্রতি আমাদের দয়া নয় বরং এগুলো তাদের অধিকার।”

বিশবিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম বলেন, “তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের সংখ্যা এদেশে খুব বেশি নয়। তারপরও বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমরা তাদের বঞ্চিত করছি।”

এসময় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের অধিকার রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

লিঙ্গ বৈচিত্র্যের বয়ানের লেখক জোবাইদা নাসরীন বলেন, “এই বইয়ের মাধ্যমে এদেশে লিঙ্গ বৈচিত্রের বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়েছে। এদেশে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ সম্পর্কে অনেক ভুল ধারণা রয়েছে। এগুলো দূর করা প্রয়োজন। এ বিষয়ে সরকার কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। একে আরও বাড়াতে হবে।”

নৃ-বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. ফারহানা বেগমের সভাপতিত্বে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের সংগঠন ‘সম্পর্কের নয়া সেতু’র সভাপতি জয়া শিকদার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।