• বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:১০ বিকেল

কুমিল্লায় গ্রাম্য মাতবরের বিরুদ্ধে ৯বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

  • প্রকাশিত ১০:৪০ সকাল সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯
ধর্ষণ
প্রতীকী ছবি।

ধর্ষকের কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে ধর্ষক ছিদ্দিকুর রহমান গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যান

কুমিল্লার মুরাদনগরে অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ৯বছর বয়সী শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে গ্রাম্য মাতবর ছিদ্দিকুর রহমানের(৬৫) বিরুদ্ধে। উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউপির বাখরাবাদ গ্রামে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে।

বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) ধর্ষিতার পরিবার ওই গ্রাম্য মাতবরের বিরুদ্ধে বাঙ্গরা থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত শুক্রবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউপির বাখরাবাদ গ্রামের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী শিশুটিকে ধর্ষক ছিদ্দিকুর রহমান ২০টাকা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ির পাশের একটি জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে । তবে কে বা কারা ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণ করে। পরবর্তীতে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যসের যোগশাজসে ভিডিওটি দেখিয়ে গ্রামের মাতবরগণ ধর্ষক ছিদ্দিকুর রহমানের কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। তবে, ভিডিওটি বুধবার ফেসবুকে ভাইরাল হলে ধর্ষক ছিদ্দিকুর রহমান গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যান।

খবর পেয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মিজানুর রহমান ও এসআই নুরুল আলম ওই গ্রামে গিয়ে ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে থানায় এনে লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করেন। পরে পুলিশের সহযোগিতায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

ধর্ষিতার ভাই জানান, “ঘটনার পর কয়েকজন মাতবর আমাদেরকে কিছু টাকা দিতে চেয়েছিল কিন্তু আমরা তা গ্রহণ করিনি।”

ধর্ষণের বিষয়ে বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, “ধর্ষকের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার সুনির্দিষ্ট কোনও অভিযোগ কিংবা তথ্য-প্রমাণ পাইনি। ভুক্তভোগী শিশুকে মেডিকেল পরীক্ষা করানো হবে। ধর্ষক ছিদ্দিকুর রহমানকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।”