• বুধবার, অক্টোবর ২৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:২৭ রাত

তদন্ত দল: পাবনায় গণধর্ষণ ও থানায় বিয়ের সত্যতা মিলেছে

  • প্রকাশিত ১২:১০ দুপুর সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
পাবনা
রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টায় পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ তার বাসভবনে সাংবাদিকদের সামনে বক্তব্য রাখার সময়। ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

জেলা প্রশাসক  বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার থেকে তিন সদস্যের তদন্ত দল, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের প্রতিটি ঘটনা অনুসন্ধান করে ধারাবাহিকভাবে গণধর্ষণ, ওসির নির্দেশে থানায় বিয়েসহ সব ঘটনার সত্যতা পেয়েছে’

পাবনায় গৃহবধূকে ধর্ষণের পর থানায় ধর্ষণকারীর সঙ্গে বিয়ের সত্যতা মিলেছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের তদন্ত কমিটির সদস্যরা। 

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টায় পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ তার বাসভবনে কথা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের একথা জানান। এর আগে সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসকের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন তদন্ত কমিটির প্রধান পাবনার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাহেদ নেওয়াজ।

জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ বলেন, “তিন সদস্যের তদন্ত দল গত বৃহস্পতিবার থেকে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে প্রকাশিত প্রতিটি ঘটনা অনুসন্ধান করে ধারাবাহিকভাবে গণধর্ষণ, ওসির নির্দেশে থানায় বিয়েসহ সব ঘটনার সত্যতা পেয়েছে।”

আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসক এ তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠাবেন বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ২৯ আগস্ট রাতে পাবনা সদরের সাহাপুরে তিন সন্তানের এক জননীকে কয়েকজন যুবক অপহরণ করে এবং আটকে রেখে চারদিন ধরে গণধর্ষণ করে। এঘটনায় মামলা না নিয়ে এক ধর্ষণকারীর সঙ্গে ওই নারীর বিয়ে দেন থানার ওসি, বিষয়টি গণমাধ্যমে উঠে আসলে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়। এরপর মামলার ৫ আসামিকে পুলিশ পর্যায়ক্রমে গ্রেপ্তার করে। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেডকোয়ার্টার) মো. ফিরোজ আহমেদকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। 

ওই কমিটির তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় প্রাথমিক অবস্থায় পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) একরামূল হককে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

এদিকে ধর্ষণের অভিযোগে পাবনার দাপুনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শরিফুল ইসলাম ঘন্টুকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাসান শাহীন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।