• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

এমপি শামসুল: ক্লাবগুলোতে তাস খেলা বন্ধ করলে ছেলেরা রাস্তায় ছিনতাই করবে

  • প্রকাশিত ১০:৫৩ রাত সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
চট্টগ্রাম-১২ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হুইপ শামশুল হক চৌধুরী
চট্টগ্রাম আবাহনী ক্লাবের মহাসচিব ও চট্টগ্রাম-১২ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হুইপ শামশুল হক চৌধুরী। ফাইল ছবি। ঢাকা ট্রিবিউন

দেশের বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চট্টগ্রাম আবাহনী ক্লাবের মহাসচিব ও চট্টগ্রাম-১২ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হুইপ শামশুল হক চৌধুরী

চট্টগ্রাম আবাহনী ক্লাবের মহাসচিব ও চট্টগ্রাম-১২ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হুইপ শামশুল হক চৌধুরী দেশের বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, "ক্লাবগুলোতে তাস খেলা বন্ধ করলে ছেলেরা রাস্তায় ছিনতাই করবে।"

রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত একটি সমন্বয় সভায় যোগ দিতে এসে গণমাধ্যমের কাছে এমন্তব্য করেন তিনি।

সভা শেষে শামশুল হক চৌধুরী বলেন, "চট্টগ্রামে শতদল, ফ্রেন্ডস, আবাহনী, মোহামেডান, মুক্তিযোদ্ধাসহ ১২টি ক্লাব আছে। ক্লাবগুলো প্রিমিয়ার লীগে খেলে। ওদের তো ধ্বংস করা যাবে না। ওদের খেলাধুলা বন্ধ করা যাবে না। প্রশাসন কি খেলোয়াড়দের পাঁচ টাকা বেতন দেয়? ওরা কীভাবে খেলে, টাকা কোন জায়গা থেকে আসে, সরকার কি ওদের টাকা দেয়? দেয় না। এই ক্লাবগুলো তো পরিচালনা করতে হবে।"


আরও পড়ুন- এমপি শামসুল: ক্লাবগুলোতে তাস খেলা বন্ধ করলে ছেলেরা রাস্তায় ছিনতাই করবে


এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "আপনারা সাংবাদিকেরা প্রেসক্লাবে বসে তাস খেলেন। এটা কি জুয়া হলো? জুয়া হলে তো আপনারা প্রেসক্লাবেও বসতে পারবেন না। তাস খেললেও জুয়া। তাস ধরলেও জুয়া। আর অভিযানে ক্যাসিনো বের করতে পারলে তাদের বাহবা দেয়া যেত।"

তিনি আরও বলেন, "আমাদের প্রশাসনকে বলব, ঘুষের ব্যবসা যারা করেন তাদের ধরেন। ঘুষ যারা নেন, তাদের ধরেন। যারা দেন, তাদেরও ধরেন।"

ঘুষ কে খান জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের এ সংসদ সদস্য বলেন, "আপনি খান। আমি খাই। সবাই ঘুষ খান।"

উল্লেখ্য, শনিবার চট্টগ্রামের আবাহনি ক্রীড়াচক্রসহ বিভিন্ন ক্লাবে অভিযান চালায় পুলিশ। সেখান থেকে জুয়া খেলার বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।