• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

ছাত্রলীগ নেতার দখলে ১০ কোটি টাকার সরকারি জায়গা!

  • প্রকাশিত ০৪:০০ বিকেল সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯
সীতাকুণ্ড ছাত্রলীগ
অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা মো. রমজান আলী ইউএনবি

এতে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি ও পরিবেশ দূষণ শুরু হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন এলাকার জনসাধারণ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ১০ কোটি টাকা মূল্যের সরকারি জায়গা দখল করে রাখার অভিযোগ উঠেছে মো. রমজান আলী নামে এক ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতির বিরুদ্ধে।

তিনি উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড কদমরসুল ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি।

অভিযোগ রয়েছে, ছাত্রলীগ নেতা রমজান কদমরসুল জাহানাবাদ এলাকায় (ছালেহ কার্পেট) মহাসড়কের পশ্চিম পাশের সড়ক ও জনপদ বিভাগের (সওজ) অন্তত ৮ একর জমি দীর্ঘদিন ধরে দখল করে দোকান, ঘর, ডিপো বানিয়ে ভাড়া দিচ্ছেন। সেখানকার একটি পুকুরও তিনি ভরাট করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি দখল করা জায়গা লাখ লাখ টাকা ভাড়া আদায় করছেন।

সম্প্রতি সেখানে একটি গেট স্থাপন করেন তিনি। এতে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি ও পরিবেশ দূষণ শুরু হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন এলাকার জনসাধারণ। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনাও সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, দখলদারিত্ব বজায় রাখতে রমজান আলী বেপরোয়া হয়ে একেবারে সরকারি চলাচলের রাস্তার ওপর গেট তৈরি করেছেন। নিজের ইচ্ছেমতো তিনি গেটটি খুলেন বা বন্ধ রাখেন। এতে গ্রামবাসীর চলাচলে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া দখল করা জায়গা অন্য একটি প্রতিষ্ঠানকে ভাড়া দেওয়ার পর সেখানে কারখানার বর্জ্য ফেলায় পুরো এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এ কারণে এলাকার সর্বত্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা বোরহান উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, প্রকাশ্যে কোটি কোটি টাকার সরকারি সম্পদ দখল করে রেখেছেন রমজান। তার ওপর চলাচলের রাস্তায় গেট, সরকারি খালে মাটি ভরাট, কারখানার বর্জ্য ফেলে দূষণ ও দুর্গন্ধ ছড়ানোসহ নানাভাবে তিনি এলাকার মানুষকে অতিষ্ঠ করে তুলেছেন।

এ ব্যাপারে ভাটিয়ারীর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ নাজিম উদ্দিন বলেন, ছাত্রলীগ নেতা রমজান আলী সরকারি ৮-১০ একর জায়গা দখল করে রেখেছেন। সেখানে দোকান, ডিপো, ভাড়া ঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা করে লাখ লাখ টাকা আয় করছে। গ্রামের যুবকরা সম্প্রতি তার দখলের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে বিক্ষোভ করেছে। এ জায়গা দখলমুক্ত করার দাবি জানাচ্ছে এলাকাবাসী।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগ নেতা রমজান আলী বলেন, ‘‘সেখানে সরকারি জায়গার পাশাপাশি আমার ব্যক্তিগত কিছু জায়গাও আছে। আর সরকারি জায়গা হলেও কোন সিটভুক্ত রাস্তা নেই।’’ তাই তিনি রাস্তা বন্ধ করেছেন। 

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরও বলেন, ‘‘এ জায়গা আমি কী করব, না করব তা আমার ব্যাপার। এ নিয়ে অন্য কেউ কিছু বলার কে?’’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জুলফিকার আহমেদ বলেন, ‘‘বিষয়টি এতোদিন আমার জানা ছিল না। এ বিষয়ে তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’