• মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:২০ রাত

শ্বশুরবাড়ির লোকদের ফাঁসাতে কিশোরকে হত্যা

  • প্রকাশিত ০৬:৫৯ সন্ধ্যা সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৯
হত্যাকারী
পুলিশ হেফাজতে হত্যাকারী মো. কোরবান আলি প্রকাশ বেলাল। ইউএনবি

কিশোর আরিফকে দাওয়াত খাওয়ার কথা বলে ফুসলিয়ে শ্বশুরবাড়ির কাছের একটি এলাকায় নিয়ে গিয়েছিলেন হত্যাকারী বেলাল

চট্টগ্রামে শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে ফাঁসাতে এক কিশোরকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত মো. কোরবান আলি প্রকাশ বেলালকে (২৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।   

বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) হাটহাজারী পৌর এলাকার কাঁচাবাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে ইউএনবি'র একটি খবরে বলা হয়। বৃহস্পতিবার বেলাল অভিযোগ স্বীকার করে হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দিয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

জানা যায়, হত্যাকারী বেলালের বাড়ি থানার মানিকপুর এলাকার মাইজপাড়া গ্রামে। নিহত কিশোর আরিফের বাড়িও একই গ্রামে। তবে, নিহতের বিস্তারিত পরিচয় এখনও পুলিশ জানতে পারেনি।

স্থানীয়রা জানান, বেলালের অত্যাচার সইতে না পেরে দীর্ঘদিন ধরেই বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন তার স্ত্রী। স্ত্রীকে ফেরাতে তিনি অনেক চেষ্টা করলেও কাজ হয়নি। এতে শ্বশুরবাড়ির লোকদের ওপর ক্ষুব্ধ হন বেলাল। পরে তিনি আরিফকে হত্যা করে তার দায় শ্বশুরবাড়ির লোকদের ওপর চাপানোর পরিকল্পনা করেন।

সেই পরিকল্পনামাফিক আরিফকে দাওয়াত খাওয়ার কথা বলে ফুসলিয়ে শ্বশুরবাড়ির কাছে ধলই ইউনিয়নের সফিনগর এলাকায় নিয়ে যান তিনি। সেখানে একটা বিলের মাঝে আরিফকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে লাশ পার্শ্ববর্তী ধানক্ষেতে ফেলে রাখেন বেলাল। গত ২১ সেপ্টেম্বর এক ব্যক্তি লাশটি দেখতে পেয়ে স্থানীয় মেম্বারের মাধ্যমে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ অজ্ঞাতনামা লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। ময়নাতদন্ত শেষে এটিকে একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে ধারণা করে পুলিশ।

পরবর্তীতে এই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে। এ ঘটনার তদন্তে নেমে হাটহাজারী থানা পুলিশের একটি টিম হাটহাজারী পৌর এলাকার কাঁচাবাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে বেলালকে গ্রেফতার করে। বুধবার রাতে জিজ্ঞাসাবাদে বেলাল হত্যার কথা স্বীকার করে। তার দেওয়া তথ্যানুসারে সন্ধান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দা উদ্ধার করে পুলিশ।

হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর বলেন, "বেলাল হত্যার দায় স্বীকার করেছে। শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে ফাঁসাতেই সে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। নিহত আরিফের বিস্তারিত পরিচয় শনাক্তে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তবে তার বাড়ি ফটিকছড়িতে বলে জানতে পেরেছি।"